পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

আরাফার দিন নিয়ে কিছু প্রশ্নোত্তর

প্রশ্ন ১ : আরাফার দিন কোনটি?
উত্তর : যেদিন হাজীরা আরাফাতের মাঠে সমবেত হন।

প্রশ্ন ২ : আরাফার দিনে সওম পালনকারীকে আল্লাহ কী পুরস্কার দেবেন?
উত্তর : এ বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন :
صِيَامُ يَوْمُ عَرَفَةٍ أَحْتَسِبُ عَلَى اللهِ أَنْ يُكَفِّرَ السَّنَةَ الَّتِيْ قَبْلَهُ وَالسَّنَةَ الَّتِيْ بَعْدَهُ
আরাফার দিনের সওম সম্পর্কে আল্লাহর কাছে আশা করি যে, তা বিগত একবছর ও আগামী একবছর (এ দুই বছর)’র পাপের কাফফারা হিসেবে গ্রহণ করা হবে। (মুসলিম : ১১৬২)

প্রশ্ন ৩: যারা আরাফাতের মাঠে হাজ্জ পালনরত থাকবে তারাও কি এ সওম পালন করবে?
উত্তর : না, তারা এ সওম পালন করবে না। নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হাজ্জ পালন অবস্থায় এ দিনে রোযা রাখনেনি। হাজ্জের পরবর্তী কার্যক্রম সম্পাদরেন শক্তি অর্জনের জন্য এ দিনে হাজীদের রোযা না রাখার মধ্যে সওয়াব বেশি।

প্রশ্ন ৪: আরাফার সিয়াম কেন একই দিনে?
আরাফার বিষয়টি স্বতন্ত্র। আরাফা একটি নির্দিষ্ট স্থানের নাম, যা সারা বিশ্বে মাত্র একটাই। আর হাদীছে صِيَامُ يَوْمِ عَرَفَةَ ‘আরাফা দিবসের ছিয়াম’ বলা হয়েছে। সুতরাং এটি আরাফার দিনের সাথেই সম্পৃক্ত।

কোন মন্তব্য নেই