পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

অসুস্থ ব্যক্তির সালাত আদায়

অসুস্থ ব্যক্তির উপর ওয়াজিব হল-ফরয সালাত দাড়িয়ে আদায় করা। যদিও কিছুটা বাকা হয়ে দাঁড়াক বা কোন দেয়ালে হেলান দিয়ে কিংবা লাঠি ভর দিয়ে।যদি কোন ভাবেই দাঁড়াতে সক্ষম না হয় তবে বসে সালাত আদায় করবে। উত্তম হলো দাঁড়ানো ও রুকু অবস্থার ক্ষেত্রে চারজানু হয়ে বসবে। (আরকানুল ইসলাম বঙ্গঃ ৩১৬ পৃঃ)

মুহাম্মদ বিন আত তুয়াইজুরি বলেন যদি দাড়িয়ে না পারে তবে চতুষ্পদ (চারজানু) হয়ে বসে বা তাশহুদের বৈঠকের ন্যায় বসে। তাও যদি না পারে তবে ডান পার্শে¦র উপর হয়ে। এও যদি কষ্টকর হয় তবে বাম পার্শ্বের উপর হয়ে আদায় করবে। এ ভাবেও যদি না পারে তবে কিবলার দিকে পা করে চিত হয়ে শুয়ে মাথা দ্বারা বুকের দিকে ইশারা করত রুকু ও সেজদা করবে। সেজদাকে রুকুর চেয়ে বেশি নিচু করবে, যদি ইশারা করতে সক্ষম না হয় তবে মনে মনে সালাত আদায় করবে,মুখে তাকবীর বলবে, কির‘আত পাঠ করবে এবং দাঁড়ানো , রুকু করা সিজদা করা, তাশাহুদে বসা ইত্যাদি মনে মনে নিয়্যত করবে। কেননা প্রত্যেক ব্যক্তি তাই পাবে যার সে নিয়্যত করে। (কোরআন সুন্নাহর আলোকে ফিকাহ ২/২১পৃঃ;আরকানুল ইসলাম বঙ্গঃ ৩১৬ পৃঃ)

অসুস্থ ব্যক্তি দাড়াতে না পারলে বা অসুখ বৃদ্ধি আশঙ্কা থাকলে বসে, শুয়ে বা কাত হয়ে সালাত আদায় করতে পারবে। ইমরান ইবনে হুসাইন (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি বাওয়াসারী রুগী ছিলাম। সালাত প্রসঙ্গে নবী করিম (ছাঃ) এর নিকট জিজ্ঞাসা করলাম, তখন তিনি বললেন,দাড়িয়ে আদায় করতে পারলে দাড়িয়ে আদায় করো, বসে আদায় করতে পারলে বসে আদায় করো অথবা শুয়ে আদায় করতে পারলে শুয়ে আদায় করো।(বুখারী; মুসলিম হা/১২৪৮)।

সিজদার সময় সামনে বালিশ, টুল বা অন্য কিছুর ওপর মাথা ঠেকিয়ে সিজদাহ দেওয়া যাবে না। আব্দুলাহ ইবনে ওমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসূল (ছাঃ) এক রুগীকে দেখতে যান রুগীটি বালিশের ওপর সালাত আদায় করছিলেন। তিনি বালিশটি ফেলে দেন। তারপর রুগীটি সালাত আদায়ের জন্য একটি কাঠ নেন তিনি কাঠটিও ফেলে দেন এবং বলেন, সক্ষম হলে মাটির ওপরে সালাত আদায় কর। নচেৎ ইশারা দ্বারা সালাত আদায় কর। এবং রুকুর তুলনায় সাজদাহয় অধিকতর ঝুকে পড়। (বাযযার, তাবারানী, বায়হাক্বী, সিলসিলা সহিহা হা/৩২৩)।

আত্বা (রাঃ) বলে, ক্বিবলার দিকে মুখ ফিরাতে অক্ষম ব্যক্তি যেদিকে সম্ভব সেদিকে মুখ করে সালাত আদায় করবে। (বুখারী, বঙ্গানুবাদ বুখারী হা/-১১১৭, আঃ প্রঃ)।

আনাস (রাঃ) বলেন,রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) কিছু রোগীর কাছে গেলেন যারা বসে বসে সালাত আদায় করছিলেন। তিনি বলেন বসে সালাত আদায় করলে দাঁড়িয়ে করার অর্ধেক সওয়াব। (আহমদ ও ইবনে মাজাহ,সনদ সহীহ: রাসূলুল্লাহ নামায পৃঃ৪৮)।

মাটিতে বসে সালাত আদায় করতে না পারলে চেয়ারে,টুল বা উচু স্থানে বসে সালাত আদায় করবে। অসুস্থ ব্যক্তি যতদিন সুস্থ না হবে ততদিন ওয়াক্তেরসালাত একসঙ্গে করে পড়তে পারবেন। দুই ওয়াক্তের সালাতকে জমা করে পড়বেন। যোহরকে বিলম্ব করে এবং আসরকে এগিয়ে নিয়ে একত্রে পড়তে হবে। অনুরুপ মাগরীবকে দেরি করে এবং ঈশাকে এগিয়ে নিয়ে একত্রে পড়তে হবে। (বঙ্গানুবাদ বুখারী হা/ ১১১২ আঃ প্রকাশ)।

কোন মন্তব্য নেই