পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

কুরআন তিলাওয়াতের সিজদাহ কেন এবং কিভাবে ?


কুরআন মাজীদের সিজদার আয়াত তিলাঅত করলে অথবা শুনলে তকবীর দিয়ে একটি সিজদাহ করা এবং তকবীর দিয়ে মাথা তোলা মুস্তাহাব। এই সিজদার পর কোন তাশাহহুদ বা সালামনেই। তকবীরের ব্যাপারে মুসলিম বিন য়্যাসার, আবূ কিলাবাহ্‌ ও ইবনে সীরীন কর্তৃক আষার বর্ণিত হয়েছে। (ইবনে আবী শাইবা, আব্দুর রাযযাক, মুসান্নাফ, বায়হাকী, তামামুল মিন্নাহ্‌, আলবানী ২৬৯পৃ:)

এই সিজদাহ করার বড় ফযীলত ও মাহাত্ম রয়েছে। মহানবী (সাঃ) বলেন, “আদম সন্তান যখন সিজদার আয়াত পাঠ করে সিজদাহ করে, তখন শয়তান দূরে সরে গিয়ে কেঁদে কেঁদে বলে, ‘হায় ধ্বংস আমার! ও সিজদাহ করতে আদেশ পেয়ে সিজদাহ করে, ফলে ওর জন্য রয়েছে জান্নাত। আর আমি সিজদার আদেশ পেয়ে তা অমান্য করেছি, ফলে আমার জন্য রয়েছে জাহান্নাম।” (আহমাদ, মুসনাদ, মুসলিম, সহীহ ৮৯৫নং, ইবনে মাজাহ্‌, সুনান)

তিলাওয়াতের সিজদা কুরআন তেলাওয়াতকারী ও শ্রোতার জন্য সুন্নত। একদা হযরত উমার (রাঃ) জুমআর দিন মিম্বরের উপরে সূরা নাহল পাঠ করলেন। সিজদার আয়াত এলে তিনি মিম্বর থেকে নেমে সিজদাহ করলেন এবং লোকেরাও তাঁর সাথে সিজদাহ করল। অতঃপর পরবর্তী জুমআতেও তিনি ঐ সূরা পাঠ করলেন। যখন সিজদার আয়াত এল, তখন তিনি বললেন, ‘হে লোক সকল! আমরা (তিলাওয়াতের সিজদাহ করতে) আদিষ্ট নই। সুতরাং যে সিজদাহ করবে, সে ঠিক করবে। আর যে করবে না, তার কোন গুনাহ হবে না।’

অন্য এক বর্ণনায় তিনি বলেন, ‘আল্লাহ আমাদের উপর (তিলাওয়াতের) সিজদাহ ফরয করেন নি। আমরা চাইলে তা করতে পারি।’ (বুখারী ১০৭৭নং)

যায়দ বিন সাবেত (রাঃ) বলেন, ‘আল্লাহর রসূল (সাঃ)-এর কাছে সূরা নাজম পাঠ করলাম। তিনি সিজদাহ করলেন না।’ (বুখারী ১০৭৩, মুসলিম,  মিশকাত ১০২৬নং)


তিলাওয়াতে সিজদার স্থান সমূহ:

১. সূরা আরাফ, ২০৬ নং আয়াত,
২. সূরা রা'দ, ১৫ নং আয়াত,
৩. সূরা নাহল, ৫০ নং আয়াত,
৪. সূরা ইসরা (বানী ইসরাঈল), ১০৯ নং আয়াত,
৫. সূরা মারিয়্যাম, ৫৮ নং আয়াত,
৬. সূরা হাজ্জ, ১৮ নং আয়াত,
৭. সূরা হাজ্জ, ৭৭ নং আয়াত,
৮. সূরা ফুরক্বান, ৬০ নং আয়াত,
৯. সূরা নামল, ২৬ নং আয়াত,
১০. সূরা সাজদাহ, ১৫ নং আয়াত,
১১. সূরা স্বা-দ, ২৪ নং আয়াত,
১২. সূরা ফুসস্বিলাত (হা-মিম সাজদাহ), ৩৮ নং আয়াত,
১৩. সূরা নাজম, ৬২ নং আয়াত,
১৪. সূরা ইনশিক্বাক্ব, ২১ নং আয়াত,
১৫. সূরা আলাক্ব, ১৯ নং আয়াত ।


বই: স্বালাতে মুবাশশির
লেখক: শাইখ আবদুল হামীদ ফাইযী

কোন মন্তব্য নেই