পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

সাইকোসিস


বিসমিল্লাহির রহমানির রহীম
.
: " Finally!!
এতক্ষণে আসার সময় হলো? তোমার কি বিন্দু পরিমাণ ধারণা আছে, যে just how irritating it is-- শুধুশুধু হাত-পা গুটিয়ে বসে থেকে তোমাকে উঠবস করতে দেখা?"
- " কিছুটা দেরী হলেও- আসলাম তো, নাকি? কারও ধৈর্যধারণ ক্ষমতা কম হলে সেটা তো আর আমার দোষ না।
আর fyi, যেটাকে তুমি "উঠবস" করা বলে ভুল ধারণা করেছো -সেটা আসলে নামায ছিল- আমি নামায পড়ছিলাম। "

: " উঠবস, নামায -same difference!
কথা হলো যে আমাকে অযথা বসিয়ে রাখা হয়েছে। একে তো এতো ভীড় সর্বত্র -দমবন্ধ হয়ে আসে কোথাও যেতে চাইলে। মনে হয় যেন জনসংখ্যার কোন বম্ব ব্লাস্ট হয়েছে, যার ক্রেডিট যায় তোমাদের মোল্লা শ্রেণীর মানুষদের প্রতি।
তার পরেও এত মানুষের ভীড় ঠেলে যে এখানে আসলাম, সেখানেও কোন কারণ ছাড়াই বসিয়ে রাখা হলো।
Just how?
মানবিকতার ইতিহাসের চরম উৎকর্ষের যুগে আর কত নিচে নামতে পারো তোমরা অসামাজিক মানুষেরা? "
- " প্রথম কথা হলো, এখানে আসার জন্য কেউ তোমাকে জোর করে নাই; তুমি নিজের ইচ্ছাতেই আসছো। So don't try to play victim -ওইসব করে কাউকে বোকা বানানোর আশা ছেড়ে দাও।
আর দ্বিতীয় কথা হলো, জনসংখ্যার তথাকথিত "বিস্ফোরণ" মুসলিমদের ফল্ট কীভাবে হলো? কোন ভিত্তি-ও কি আছে এটা বলার, নাকি জাস্ট "মুখ আছে তাই বলে দিলাম" -টাইপ ব্যাপার? "
.
: " অবশ্যই ভিত্তি আছে! আমি একজন বিজ্ঞানমনস্ক মানুষ। তুমি কি মনে করো আমি কোন প্রমাণ ছাড়াই তোমাদের মত আষাঢ়ে গল্প ফেঁদে বসবো? "
- " এছাড়া তো আর কিছু আজ পর্যন্ত কিছু করতে দেখলাম না; but sure, go ahead... "
.
: " যত্তসব ফালতু কথাবার্তা! তুমি কি জানো, তোমার এই একটা কথার কাউন্টারই আমি হান্ড্রেড ডিফরেন্ট ওয়েজে করতে পারি?
কিন্তু আমি করবোনা, কারণ আমি একজন সেনসিবল পার্সন- unlike you।
বেহুদা ও ফালতু কথাবার্তা আমি পছন্দ করি না। "
- " yet I find you here, on every other day- making "বেহুদা" accusations, and asking "ফালতু" questions। "
.
: " ...আমি জানি তোমার উদ্দেশ্য কী। তুমি চাইছো আমাকে উত্তেজিত করে তুলতে, যাতে আমি কোন কিছুতে গড়বড় করি আর তুমি তার ফায়দা নাও।
কিন্তু sorry to dissapoint you, তা হবে না। আমি আমার বক্তব্য রাখবোই, তা তোমার পছন্দ হোক বা না হোক। "
- " ওয়েল, এতক্ষণ ধরে তোমার বক্তব্যেরই অপেক্ষা করছি, সময় কি হয় নাই সেটার এখনো? "
.
: " শোনো তাহলে। আমার মতে জনসংখ্যার এত আধিক্যের পেছনে তোমাদের হুজুরগোষ্ঠীর হাত আছে। কুসংষ্কারে ভরা এই সমাজকে আরও অন্ধকারে ঠেলে দিতে তাদের জুড়ি নেই। "
- " কীভাবে? "
.
: " কীভাবে?!
তোমরাই না বলে বেড়াও, "মুখ দিছেন যিনি, আহার দিবেন তিনি"? তোমরাই না জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডা চালাও -তা গ্রহণ না করার জন্য?
তোমরাই না "দুটি সন্তানের বেশি নয়, একটি হলে ভালো হয়" -এর মত গণসচেতনতামূলক ক্যাম্পেইনের বিরোধীতা করো?
তোমরাই না প্রচার করে বেড়াও, যে তোমাদের নবী নাকি তোমাদের অধিক সংখ্যা নিয়ে গর্ব করবে -তাই যত পারো জনসংখ্যা বাড়াও? "
- " ভালো ডেটা কালেক্ট করেছো। আরও কিছ... "
.
: " কোন কথাই বোলো না আর। "
মুখের কথা কেড়ে নিয়ে বললো।
: " তোমাদের আর কাজ কী? শুধু খাওদাও, ঘুরে বেড়াও, আর বছর বছর খালি বাচ্চা পয়দা করো -যার প্রভাবটা পড়ে গোটা সমাজের ওপর।
নিয়ন্ত্রণহীন জনসংখা একটা সমাজ, একটা রাষ্টের ওপর কোন লেভেলের ডেভেস্টেটিং আর্থ-সামাজিক প্রভাব ফেলে -কল্পনাও করতে পারো?
তোমাদের স্রষ্টা যদি এতই জন্মনিয়ন্ত্রণের বিপক্ষে হোন, তার নবীর জনসংখ্যা নিয়ে গর্ব করাকে যদি অ্যাপ্রুভই করেন -তাহলে কেন এমন দুনিয়া বানালেন, যেখানে সেই বিশাল পরিমাণ জনসংখ্যা একটা সমস্যা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে?
নাকি তার জানা ছিল না, যে এই জনসংখ্যা বিস্ফোরণ সাসটেইন করার জন্য- তারই বানানো দুনিয়া যথেষ্ট হবে না?
যে সেটিতে ভূমির পরিমাণ সীমিত হবে, যাবতীয় রিসোর্স সীমিত হবে?
ঠিক কোন লেভেলের হিপোক্রিসি এটা? "
.
- " Well that was something, while it lasted...!! "
হাহা করে হেসে উঠে বললো।
.
: " হাসা ছাড়া আর কী-ই বা বলার আছে তোমার? আমি জানতাম তো, যে যুক্তিতে না পেরে উঠলে সারকাজমের দিকে ঝুঁকবে -এটাই তো একমাত্র ডিফেন্স মেকানিজম তোমাদের, আর কী পারো তোমরা? "
- " আচ্ছা, সেসব কথা থাক। আমাকে বলো তো, কখনো ❝ নেফ্রন ❞ নামের কিছুর কথা শুনেছো? "
.
: " শুনি কিংবা না-ই শুনি, তার সাথে আমার বক্তব্যের কানেকশনটা কী?
ডানেবাঁয়ে না কেটে সোজা পয়েন্টে আসো, যদি পারো। "
- " আহা, এত অস্থির হলে কীভাবে হবে? তারচেয়ে আসো চা খাই। খাবে নাকি এককাপ? "
বলে ঘরটির দেয়ালের এককোণের দিকে তাকালো।
- " কী বলো? করা যাবে নাকি ব্যবস্থা, D? "
.
: " এই D -টা কে, যার সাথে প্রায়শই দেখি তুমি কথা বলতে থাকো? তোমার তথাকথিত গড, নাকি কোন ইমাজিনারি ফ্রেন্ড? "
- " নাহ, D কেবলমাত্র একজন অবজার্ভার। He's not always there and listening though, তবে মাঝেমধ্যে সে থাকে।
সেজন্যেই কখনো কখনো জবাব পাই, আবার কখনো পাই না।
.
: "ফালতু বকবাকানি রাখো। নের্ফন না কীসের যেন কথা বলতেছিলে? সেটা আগে ক্লিয়ার করো। "
- " (দীর্ঘশ্বাস ফেলে) ঠিক আছে। "
দেয়ালের দিক থেকে ঘুরে বসলো।
.
.
- " নেফ্রন- not নের্ফন, fyi- হলো কিডনীর গাঠনিক একক। একটি দেহ যেমন অনেকগুলো কোষ দিয়ে গঠিত, একটি কিডনীও তেমনিভাবে অনেকগুলো নেফ্রন দিয়ে গঠিত। "
: " তো? কাজের কথায় আসো। "
.
- " তোমার আসলেই ধৈর্য্যের বড় অভাব, জানো? "
ঠং ঠং করে দরজায় দুইবার শব্দ হলো।
তার কিছু পরেই অপরপাশ থেকে কেউ একজন দরজার নিচের দিকের চারকোণা খোপের মত অংশটা দিয়ে মাঝারি মাপের একটা থার্মোমগ ভেতরে ঠেলে দিলো।
.
: " কী ওটা? "
- " কী আবার? চা। কার্টেসি অফ D।
খাবে না?"
.
: " তার আগে যা বলতেছিলে তা শেষ করো। নেফ্রন কিডনীর গাঠনিক একক -তো কী হয়েছে? "
- " তো যা হয়েছে, "
মগের ঢাকনাটা খুলে চায়ে চুমুক দিলো।
- " তা হলো এই নেফ্রনের সংখ্যা।
একটি কিডনীতে গড়ে প্রায় ১০-১২ লক্ষ, অর্থাৎ ১-১.২ মিলিয়ন নেফ্রন থাকে। প্রতিটা নেফ্রন আবার ৩ সেন্টিমিটার করে লম্বা।
তাহলে যদি নেফ্রনের মোট সংখ্যা ১ মিলিয়নও ধরে নেওয়া হয়, তাহলে জানো একটা কিডনীতে থাকা সমস্ত নেফ্রনের মোট দৈর্ঘ্য কত হবে? "
.
: " কত? "
- " ৩০ কিলোমিটার! আর ১২ লক্ষ হিসেবে নিলে হবে তা ৩৬ কিলোমিটার!
কিন্তু আসল টুইস্টটা কোথায় জানো? আসল ইন্টারেস্টিং ব্যাপারটা হলো কিডনীর সাইজে- যা হলো মাত্র ১০-১২ সেন্টিমিটার! "
আরেকবার চুমুক দিয়ে মগটা নামিয়ে রাখলো।
- " চিন্তা করতে পারো, ৩০-৩৬ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের একসারি নেফ্রন মাত্র ১০-১২ সেন্টিমিটারের একটা কিডনীতে দেওয়া আছে?!! "
.
: " এই হলো তোমাদের সমস্যা, সবকিছুতেই মিরাকল খুঁজতে যাও। "
মগটা তুলে নিয়ে চুমুক দিয়ে বললো।
: " এভাবে দেখতে গেলে রাত-দিনের আবর্তনটাকেও মিরাকল লাগা শুরু করবে। "
- " অবশ্যই লাগবে! আর লাগাটাই স্বাভাবিক।
কারণ এ সমস্ত মিরাকলের মাধ্যমেই মালিকুল মুলকের মহত্ব, শ্রেষ্ঠত্ব, বড়ত্ব পরিস্ফুটিত হয়ে ওঠে -কেবলমাত্র দেখার মত চোখ, আর উপলব্ধি করার মত বাস্তবিক অর্থেই একটা ❝ মুক্তমন ❞ থাকা লাগে। "
.
: " আসল কথায় আসো। What's your point? "
- " আমার পয়েন্টে আসার আগে আরেকটা ফান ফ্যাক্ট ইনক্লুড করা যাক। "
.
: " Now what?!! "
খটাশ করে মগটা নামিয়ে রাখলো।
- " আহহা, নিজের ফ্রাস্ট্রেশন এভাবে জড়বস্তুর ওপরে অ্যাপ্লাই করে কী লাভ? "
মগটা তুলে নিয়ে উল্টেপাল্টে দেখলো।
- " আর এদিকে আমি আরও ভাবতেছিলাম যে you were supposed to be ❝ বিজ্ঞানমনস্ক ❞। "
.
: " আর কতবার বললে কানে দিয়ে কথাটা যাবে?
Just get to point already!! "
- " আচ্ছা ঠিক আছে। তো যা বলছিলাম, আরেকটা ফান ফ্যাক্ট।
তো কথা হলো, একটা পূর্ণাঙ্গ মানবদেহে কোষের পরিমাণ জানো কত? ~৩৭.২ ট্রিলিয়ন, যেখানে ১ ট্রিলিয়ন হয় ১০০০ বিলিয়নে।
তো এই বিশাল সংখ্যক কোষের প্রত্যেকটিতেই DNA আছে -কারেক্ট? "
.
: " হুম, কারেক্ট। কারণ আমি যতদূর জানি, DNA ছাড়া নাকি দেহের কোন কাজই হবে না। "
- " এক্সাক্টলি। এখন কিডনী যেমন নেফ্রন দিয়ে গঠিত, এই DNA-ও আবার তেমন নিউক্লিওটাইড নামক গাঠনিক একক দিয়ে গঠিত -যা থাকে জোড়ায় জোড়ায়। "
সুড়ুৎ করে চায়ে চুমুক দিয়ে বললো।
- " অর্থাৎ ১টা নিউক্লিওটাইড পেয়ার বলা মানে সেখানে আসলে ২টা নিউক্লিওটাইড আছে। এখন আসল মজাটা ঠিক এখানেই।
একটা কোষের DNA-তে ৩০০ কোটি বা ৩ বিলিয়ন এমন নিউক্লিওটাইড পেয়ার্স থাকে! তাহলে বলতে পারো, তাদের প্রকৃত সংখ্যাটা কত দাঁড়ালো? "
.
: " ৩ বিলিয়ন পেয়ার্স, তারমানে ৬ বিলিয়ন সিঙ্গল নিউক্লিওটাইড? "
- " এক্সাক্টলি! একটামাত্র কোষেই এতগুলো নিউক্লিওটাইড, তাহলে কল্পনা করতে পারো গোটা দেহের কোষ মিলিয়ে কতগুলো হবে? "
মগটা নামিয়ে রেখে বললো।
.
: " হুম, অনেক। "
মগটা তুলে চুমুক দিয়ে বললো।
- " আর যদি এই সবগুলো নিউক্লিওটাইডকে একের পর এক বসাতে থাকা হয়, তাহলে দৈর্ঘ্যটা কত দাঁড়াবে জানো?
৬৭ বিলিয়ন মাইল -যা প্রায় ৭০ বার সূর্যে আসা-যাওয়ার সমপরিমাণ দূরত্ব!!
মাথা নষ্ট করার মত ব্যাপার না?! "
.
: " Well, that's a lot of numbers। কিন্তু আমার এখনো বুঝে আসতেছে না যে তুমি কী বুঝাতে চাচ্ছো, আর আমি যা যা বললাম সেগুলোর সাথেই বা এগুলোর সম্পর্ক কোথায়? "
- " আমি জাস্ট এটাই বুঝাতে চাচ্ছি যে তুমি কি সত্যি-ই বিশ্বাস করো, যে a SUPREME BEING -capable of feats of this caliber -এমন এক দুনিয়া বানাবেন,
যেখানে তিনি রিযিক্ব ও দারিদ্র্যের ভয়ে শিশুদের হত্যা করতে নিষেধ করে[*] পরবর্তীতে তাদেরই স্থানসংকুলান করতে পারবেন না? "
.
.
: " কী বলতে চাও তুমি? "
ভ্রু কুঁচকে চায়ের মগটি নামিয়ে রাখলো।
.
- " বলতে চাই না, আমি বলছি! "
এতক্ষণ আটকে থাকা মগটাকে সুযোগ পেয়েই ছোঁ দিয়ে তুলে নিয়ে বললো।
- " তুমি কি জানো পুরো পৃথিবীর লোকসংখ্যা কত?
৭ বিলিয়ন। "
.
: " একচুয়ালি তা আরও বেশি, ভাল করে জেনে কথা বলো। "
- " আমি জানি তা আরও বেশি, 7.6 billion as of October 2017।
আমি ভগ্নাংশ বাদ দিয়ে হিসাব দেখাতে চাচ্ছিলাম, যাতে বুঝতে সুবিধা হয়।
'Cause I'm not so sure if you're gonna be able to grasp the following calculations -even withouth the fractions... "
.
: " মানে?!! "
- " মানে আমি খুব একটা আশাবাদী নই যে ভগ্নাংশ ছাড়া করা হিসাবও তোমার বুঝে আসবে কিনা। "
.
: " I know what it means you uncultured, medieval psychopath!!! "
খেঁকিয়ে উঠে বললো।
: " আমি বলছি যে কী বুঝাতে চাও তুমি এ কথার মাধ্যমে?! "
.
- " সেটাই বুঝাতে চাই -যেটা তুমি বুঝেছো। আর যেভাবে তুমি রিঅ্যাক্ট করলে- তাতে বুঝতে অসুবিধা হয় না, যে তুমিও জানো আমার কথা সঠিক। "
একগাল হাসি নিয়ে আবারও দেয়ালের সেই কোনার দিকে তাকালো।
- " ঠিক কিনা, D? "
.
.
: " আমি এখানে তোমার ইমাজিনারি অবজার্ভারের সাথে খোশগল্প করা দেখতে আসি নাই, you understand?!
কাজের কথায় আসো!!! "
- " চেঁচালেই কি সব সমাধান হয়ে যায়? "
দেয়ালের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে বললো।
- " তবে যাই হোক, আসল কথায় আসি। তো, ওয়ার্ল্ড পপুলেশন রাউন্ড ফিগার হিসেবে ধরে নেওয়া যাক ৭ বিলিয়ন। এখন আমি যদি বলি, যে এই ৭০০ কোটি মানুষকে একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ এলাকায়ই সাসটেইন করা সম্ভব -এবং তাও খুব ভালভাবেই সম্ভব, তাহলে? "
.
: " যে জিনিসের কোনরকমের ভিত্তির ভ-ও নাই, তা বলা আর না বলায় কী আসে যায়?
জনসংখ্যার চাপে সবার দম আটকে যোগাড়, আর এ আসছে পুরো ওয়ার্ল্ড পপুলেশনকে একাই একটা নির্দিষ্ট এলাকায় ধরিয়ে ফেলতে।
৭০০ কোটি বলতে যে ঠিক কত বোঝায় -তার কোন আইডিয়াও কি আছে কুয়ার ব্যাঙ কোথাকারের? "
- " জানতাম যে এমনই কিছু একটা রিঅ্যাকশন পাবো। আচ্ছা শুনো তাহলে, আমি যা বললাম তা অবশ্যই সম্ভব; পুরো পৃথিবীর জনসংখ্যাকে কেবল আমেরিকার এক টেক্সাস স্টেটেই জায়গা দেওয়া সম্ভব, তাও যথেষ্ট ফ্যাসিলিটিসহ। "
.
: " ওয়াও। কল্পকাহিনী আর কত চালাবে? শুনি তাহলে, কীভাবে সম্ভব? "
- " আচ্ছা, ধরো যদি ৭ বিলিয়ন লোকসংখ্যাকে ফর এক্সাম্পল- ৪ জন মানুষের একটা পরিবার হিসেব করে ভাগ করা হয়- তাহলে পুরো বিশ্বে মোট পরিবারের সংখ্যা দাঁড়ায় ১.৭৫ বিলিয়ন পরিবার।
এখন যদি আসি টেক্সাসে, তাহলে দেখা যায় যে আমেরিকার এই স্টেটটির টোটাল এরিয়া হলো ৬,৯৬,২৪১ বর্গ কিলোমিটার, অথবা ৭,৪৯৪.২৮ বিলিয়ন স্কয়ার ফীট।
তাহলে যদি ১.৭৫ বিলিয়ন পরিবারকে যদি এই একটা স্টেটেই সাসটেইন করা হয়, তাহলেও প্রত্যেকটা পরিবার ( ৭,৪৯৪.২৮ ÷ ১.৭৫ ) অর্থাৎ প্রায় ৪,২৮২.৪৫ স্কয়ার ফীটের জায়গা পাবে। "
.
: " কিন্তু...(খক খক করে কাশতে শুরু করলো),
কিন্তু ৪,২৮২.৪৫ স্কয়ার ফীট আর কতটুকুই বা হয়? গাদাগাদি করিয়ে, একজনের ওপরে আরেকজনকে উঠিয়ে রাখার মত কথা সাজেস্ট করছো ইডিয়টের মত? "
- " Really? Are you being serious right now?
তুমি কি জানো, যে ৩৫০০ স্কয়ার ফীটের বেশি জায়গার ওপর তৈরী করা যেকোন বাড়িই যেন একেকটা শো-পিস হিসেবে গণ্য করা হয়?!
সেখানে ৪০০০ স্কয়ার ফীটের ভেতরে ৫টা বেডরুম, ৩-৩.৩৫টা বাথরুম, ৩টা গ্যারেজের একটা ২ তলা বাড়ি দাঁড় করানো সম্ভব, আর হিসাবে তো এর চেয়েও প্রায় ৩০০ স্কয়ার ফীট বেশি পাওয়া যাচ্ছে!!
সাথে আপ-টু-ডেট কিচেন, হাই স্ট্যান্ডার্ডের লিভিং রুম তো আছেই। আর এর বাইরেও এক্সট্রা ফ্যাসিলিটিস যেমন স্টাডি, মিডিয়া রুম ইত্যাদির কথা আর না-ই বা বলি। "
এতক্ষণ ধরে একটানা কথা বলায় ঠান্ডা হয়ে যাওয়া চায়ের মগ নামিয়ে রেখে বললো।
- " আর এর সবই পুরো ওয়ার্ল্ড পপুলেশনের প্রত্যেকটা মানুষকে প্রোভাইড করা সম্ভব, তাও কেবলমাত্র আমেরিকার একটামাত্র স্টেটে রেখেই।
এর বাইরে তো শুধু আমেরিকারই আরও ৪৯টা স্টেট, ১টা ফেডারেল ডিস্ট্রিক্ট, ৫টা স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল এবং বিভিন্ন অধিকারভুক্ত এলাকা পড়েই রয়েছে;
আর পুরো পৃথিবীর কথা তো বাদই দিলাম। "
.
.
: "......."
- " আসল সত্যটা হলো মালিকুল মুলক তার আবদ -এর জন্য শুধু এক পৃথিবী বানিয়েছেন,
কিন্তু যুগে যুগে একে " Divide and rule" -এর মত অগণিত এজেন্ডা নিয়ে খন্ড-বিখন্ড করেছে স্বার্থান্বেষী কুফফার ও মুনাফিকেরা; জাতের নামে, বর্ণের নামে, ভাষার নামে।
কাল্পনিক কিছু রেখা এঁকে দিয়ে বোঝানো হয়েছে যে এপাশের এটা তোমার দেশ, আর ওপাশের ওটা হলো বিদেশ।
যার কারণে দেখা যায় একই সীমানার একপাশে যখন মানবজন্ম রোধে ক্যাম্পেইন চালানো হয়, আইন বানানো হয়;
অন্যপাশে তখন জনসংখ্যা বাড়ানোর জন্য ক্যাম্পেইন চালানো হয়, ভাতা ও পুরষ্কার ঘোষণা করা হয়।
আর এসবের সাথে জনসংখ্যা সমস্যা কিংবা বিস্ফোরণের মত কিছু বুলিসর্বস্ব টার্ম গুলিয়ে খাইয়ে দেওয়া হয়েছে চিনির মত,
যাতে করে তার মিষ্টি স্বাদের আড়ালে সমগ্র বিশ্ব ও তার সম্পদের ভান্ডারকে কুক্ষিগত করে রেখে কলকব্জা নাড়ানো যায়। "
.
.
: " ...আসলে, এহেম..আমার আসলে যাওয়া প্রয়োজন। দেরী হয়ে যাচ্ছে। "
- " কী কাজে? আরও কিছু মতবাদ খুঁজে বের করে নিয়ে আসার জন্য? "
হেসে উঠে বললো।
.
: "......."
- " জবাব নেই কেন? আরে দাঁড়াও দাঁড়াও, আমিও যাবো। তবে তার আগে একটা কথা বলে আসি। "
.
- " হ্যালোওওও, whadup dude!!
আজকে কী মনে হলো? এক্সপেক্টেশন পূরণ হয়েছে নাকি, D?
Or would you rather prefer me saying..."
পুনরায় সেই দেয়ালের কোনার দিকে তাকিয়ে হাসিমুখে গলা চড়িয়ে কথা বলতে শুরু করলো।
.
.
.
.
ক্রিং ক্রিং!!
.
কম্পিউটার স্ক্রীনের সামনে বসে থাকা ল্যাবকোট পড়া মধ্যবয়সী লোকটা পকেট থেকে মোবাইল ফোনটা বের করলেন, তার আগে স্ক্রীণে থাকা টাইমারটা এক ঝলক দেখে নিলেন।
.
: " স্যার, আপনাকে কেবিনে না পেয়ে ফোন দিলাম। ৬ নং বেডের পেশেন্ট আবারো ভায়োলেন্ট ফেইজে চলে গেছে, আপনাকে আসার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।
বাই দা ওয়ে, এই মুহূর্তে আপনি কোথায় আছেন? "
- " ডিআইডি উইঙে। "
: " (ওপর প্রান্তে থাকা ব্যক্তিটি হেসে দিলো) আবারও সাবজেক্ট ২৭ স্যার? "
.
.
// হ্যালোওওও, wadup dude!! //
.
জবাবে কিছু একটা বলতে গিয়ে বাধা পেলেন মাঝবয়সী লোকটি।
মনিটর থেকে হাই ভলিউমে কথা আসছে।
.
//আজকে কী মনে হলো? এক্সপেক্টেশন পূরণ হয়েছে নাকি, D?
Or would you rather prefer me saying your full designation, Doctor? //
.
হেসে দিলেন ল্যাবকোট পড়া লোকটি।
যে মানুষ সিসিটিভি ক্যামেরার সিক্রেটলি ইন্সটল করার নতুন পজিশন আধাদিনের মাথায়ই খুঁজে বের করে ফেলতে পারে, তার ছোট্ট একটা চালাকি মিস করে ভুল করে ফেলেছেন তিনি।
.
যদিও প্রায় সময়েই যখন তিনি একে পর্যবেক্ষণ করেন, চেষ্টা করেন যেন সে টের না পায়।
কিন্তু আজ সে বুঝে গেছে, যে তিনি মনিটরের সামনে বসা আছেন।
কারণ তিনি এত গভীর মনোযোগের সাথে সবকিছু দেখছিলেন, যে আগেপিছে কিছু না ভেবেই হুট করে তিনি ওর চা -এর রিকোয়েস্টে সাড়া দিয়ে ফেলেছিলেন।
.
কে জানে, হয়তোবা এটাও এর একটা ট্রিক ছিল।
তাঁর অ্যাটেনশন সম্পূর্ণরূপে অন্যদিকে নিয়ে সাবকনশাসলি তাঁকে দিয়ে কাজটা করিয়ে নিয়েছে।
.
যার ফলে ঠিক এই মুহূর্তে হিডেন সিসিটিভি ক্যামেরার মধ্য দিয়ে স্ক্রীণের ওপর একগাল হাসি নিয়ে তাঁর দিকে তাকিয়ে আছে একই দেহে ১৯টি ভিন্ন ভিন্ন আইডেনটিটি বহন করা এ পেশেন্টটি,
এই মেন্টাল অ্যাসাইলামের ডিসোসিয়েটিভ আইডেনটিটি ডিসওর্ডার উইঙের notorious সাবজেক্ট ২৭।
.
.
- " হ্যাঁ, ঠিক বলেছো। সাবজেক্ট ২৭ -ই। Very interesting case this one, I must say। "
কলারকে বললেন লোকটি।
- " যাই হোক, তোমরা ওই পেশেন্টকে রিস্ট্রেইন করো, সিডেটিভ দাও।
আমি আসছি। "
: " ওকে স্যার, থ্যাংক ইউ। "
.
চেয়ার ঠেলে উঠে দাঁড়ালেন ডাক্তারটি।
" সামনের দিন থেকে এখানে নিজের পার্সোনাল ইন্টারেস্টস একপাশে সরিয়ে রেখে আরেকটু বেশি অ্যালার্ট থাকতে হবে" -ভাবতে ভাবতে তিনি বের হয়ে গেলেন মনিটরিং রুমটি থেকে।
আর পেছনের মনিটরে দেখা গেল ছোট্ট একটা রুমের মেঝেতে বসে থাকা এক যুবককে- একা একাই কথা বলতে এবং মাঝেমধ্যে হেসে উঠতে।
.
.
.
.
.
[*]
■...এবং তোমাদের সন্তানদের দারিদ্র্যের কারণে হত্যা কোরো না, আমিই তোমাদেরকে রিযিক্ব দেই এবং তাদেরকেও।...
- সূরাহ আল-আনআম, ১৫১ -এর অংশবিশেষ
.
■এবং তোমাদের সন্তানদের দারিদ্র্যের কারণে হত্যা কোরো না, আমিই তোমাদেরকে রিযিক্ব দেই এবং তাদেরকেও। নিশ্চয়ই তাদেরকে হত্যা করা জঘন্যতম অপরাধ।
- সূরাহ আল-ইসরা (বনী ইসরাঈল), ৩১
=========
লেখক-মোঃ মশিউর রহমান

অফিসিয়াল ওয়েব সাইট ঃ shottokothon.com  এবং response-to-anti-islam.com

ফেসবুক পেজঃ fb.com/shottokothon1

কোন মন্তব্য নেই