পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

জিন শয়তান মোকাবিলার পদ্ধতি


মানুষ যখন জিনকে ভয় পায় তখন জিন সহজেই তাকে প্রভাবিত করে আনন্দ পায়। জিনকে ভয় পাওয়া মানবীয় দুর্বলতা মাত্র। জিন কোনো অলৌকিক ক্ষমতার অধিকারী নয়। বরং জিন মানুষদেরকে অধিক ভয় পায়। বিশেষত শক্তিশালী ঈমান ও তাকওয়ার অধিকারীদেরকে শয়তানগণ ভয় করে। বুখারী-মুসলিম সংকলিত হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ) বলেছেন, শয়তান উমার (রা)-কে এত ভয় করত যে, তাঁকে কোনো রাস্তায় চলতে দেখলে সে অন্য রাস্তায় চলে যেত। সহীহ বুখারীতে সংকলিত অন্য হাদীসে আমরা দেখি যে, শয়তান আবূ হুরাইরা (রা)-কে ভয় পাচ্ছিল। প্রসিদ্ধ তাবিয়ী মুজাহিদ ইবন জাবর (১০৪ হি) বলতেন:
إنهم يهابونكم كما تهابونهم ... الشيطان أشد فَرَقاً من أحدكم منه، فإن تعرض لكم فلا تَفرُقوا منه فيركبكم، ولكن شدُّوا عليه فإنه يذهب.
“তোমরা জিন বা শয়তানগণ থেকে যেরূপ ভয় পাও তারাও তোমাদের থেকে তেমনি ভয় পায়।...একজন মানুষ শয়তান থেকে যতটুকু ভয় পায় শয়তান মানুষকে তার চেয়েও বেশি ভয় করে। কাজেই কোনো জিন-শয়তান যদি তোমাদের কারো সম্মুখীন হয় তাহলে ভীত হবে না। ভয় পেলে সে তোমার উপর সাওয়ার হবে। বরং তাকে শক্তভাবে প্রতিরোধ করবে, তাহলে সে চলে যাবে।”
যাহাবী, সিয়ারু আ’লামিন নুবালা ৪/৪৫৩; কাযী বদরুদ্দীন শিবলী, আকামুল মারজান, পৃষ্ঠা ৮১।

রাহে বেলায়াত
ড. আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর রাহিমাহুল্লাহ।

কোন মন্তব্য নেই