Ticker

6/recent/ticker-posts

Advertisement

যেমন ছিলেন আমাদের প্রিয় নবী (সা)

 


যেমন ছিলেন আমাদের প্রিয় নবী - মুহাম্মাদ (সঃ):

১/ তিনি দীর্ঘ সময় নীরব থাকতেন।

২/ তিনি কম হাসতেন।

৩/ তিনি মুচকি হাসতেন, হাসি ওনার ঠোঁটে লেগে থাকতো।

৪/ তিনি অট্রহাসি হাসতেন না

৫/ তিনি তাহাজ্জুদ নামাজ ত্যাগ করতেন না।

৬/ তিনি শতবার ক্ষমা প্রাথনা করতেন।

৭/ তিনি কখনোই প্রতিশোধ নিতেন না।

৮/ তিনি যুদ্ধক্ষেএ ছাড়া কাউকেই আঘাত করেননি।

৯/ তিনি বিপদে পড়লে তাৎক্ষনিক নামাজে দাঁড়িয়ে পড়তেন।

১০/ তিনি অসুস্থ হলে বসে নামাজ পড়তেন।

১১/ তিনি শিশুদের সালাম দিতেন।

১২/ তিনি সমাবেত মহিলাদের সালাম দিতেন।

১৩/ তিনি শিশুদের পরম স্নেহ করতেন।

১৪/ তিনি পরিবারের সদস্যদের সাথে কোমল আচরন করতেন।

১৫/ তিনি সোমবার ও বৃহস্পতিবার রোজা রাখতেন।

১৬/ তিনি ঘুম থেকে জেগে মেসওয়াক করতেন।

১৭/ তিনি মিথ্যাকে সার্বাধিক ঘৃনা করতেন।

১৮/ তিনি উপহার গ্রহন করতেন।

১৯/ তিনি সাদকাহ (দান) করতেন।

২০/ তিনি সব সময় আল্লাহ কে স্মরণ করতেন।

২১/ তিনি আল্লাহ কে সব সময় ভয় করতেন

২২/ হাতে যা আসতো তা আল্লাহর রাস্তায় দান করে দিতেন।

২৩/ কেউ কথা বলতে বসলে সে ব্যাক্তি উঠা না পর্যন্ত তিনি উঠতেন না।

২৪/ বিনা প্রয়োজনে কথা বলতেন না।

২৫/ কথা বলার সময় সুস্পষ্ট ভাবে বলতেন যাতে শ্রবনকারী সহজেই বুঝে নিতে পারে।

২৬/ কথা, কাজ ও লেন- দেনে কঠোরতা অবলম্বন করতেন না।

২৭/ নম্রতা কে পছন্দ করতেন।

২৮/ তার নিকট আগত ব্যাক্তিদের অবহেলা করতেন না।

২৯/ কারো সাথে বিঘ্নতা সৃষ্টি করতেন না।

৩০/ শরীয়ত বিরোধী কথা হলে তা থেকে বিরত থাকতেন বা সেখান থেকে উঠে যেতেন।

৩১/ আল্লাহ তায়ালার প্রতিটি নিয়ামত কে কদর করতেন।

৩২/ খাদ্য দ্রব্যের দোষ ধরতেন না। মন চাইলে খেতেন না হয় বাদ দিতেন।

৩৩/ ক্ষমা কে পছন্দ করতেন।

৩৪/ সর্বদা ধৈর্য্য ধারন করতেন।

রাসুল (সা.) এর গুনাবলী বর্ননা করে শেষ করা যাবে না।

আল্লাহ তায়ালা আমাদের কে নবী (সা.) এর চরিত্রে চরিএবান হওয়ার তাওফীক দান করুন (আমিন)।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ