পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

অতীত চিরদিনের মতো চলে গেছে

কোন ব্যক্তি অতীতের দুঃখজনক ঘটনাকে কেন্দ্র করে বসে বসে চিন্তা-ভাবনা করে শুধু একধরনের পাগলামিই দেখাতে পারে- যে পাগলামী বর্তমান জীবনযাপন করার বা উপস্থিত মূহুর্তে বেঁচে থাকার দৃঢ় সংকল্পকে ধ্বংস করে দেয়ার মতো এক ধরনের রোগ । যাদের দৃঢ় সংকল্প আছে তারা অতীতের ঘটনাবলিকে ধুয়ে মুছে ফেলে দিয়ে ভুলে গিয়েছে । এ ঘটনাগুলো আর কখনও সত্যের পথে বাধা হয়ে দাড়াবে না ।


কেননা, সেগুলো বিস্মৃতির অতল গহ্বরে হারিয়ে গেছে । অতীতের উপখ্যান শেষ হয়ে গেছে; দুঃখ ওগুলোর ক্ষতিপূরণ করতে পারে না, বিষণ্ণতা সেগুলোকে সংশোধন করতে পারে না, আর হতাশা কখনও অতীতকে পুনরুজ্জীবন দান করতে পারে না । কেননা, অতীত চিরকাল অতীত- তা অস্তিত্বহীন ।

অতীতের দুঃস্বপ্ন দেখবেন না বা যা হারিয়েছেন তার মিছে আশা করবেন না । আপনি কি মনে করেন যে, আপনি সূর্যকে তার উদয়স্থলে, শিশুকে তার মায়ের জঠরে, দুধকে পশুর ওলানে অথবা অশ্রুকে আখিতে ফিরিয়ে দিতে পারবেন?

অতীতের দিনগুলো চলে গেছে ও শেষ হয়ে গেছে, আর ইতিহাসের চাকা উল্টোদিকে বা পিছন দিকে ঘুরিয়ে ময়না তদন্ত করে আপনার কোন লাভ হবে না ।

যে লোক অতীতের চিন্তায় বিভোর থাকে, সে তো ঐ লোকের মতো যে লোক কাঠের গুঁড়াকে করাত দিয়ে চেরাই করতে চায় । যে ব্যক্তি অতীত নিয়ে কান্না-কাটি, হা-হুতাশ ও দুঃখ করত এমন ব্যক্তিকে প্রাচীনকালে বলা হতো- 'মৃতদেরকে তাদের কবর থেকে তুলিও না' ।

সকল জ্বীন ও ইনসান একত্রে অতীতকে ফিরিয়ে আনতে চাইলেও অতি নিশ্চিতভাবে তারা ব্যর্থ হবে । তাই আপনাকে আগামীর নতুন কিছুর জন্য কাজ করতে হবে, যা আপনার ভবিষ্যৎ জীবনে সুখ এনে দিতে পারবে (ইন শা আল্লাহ্) ।

কোন মন্তব্য নেই