পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

আমার ভাগ্য কী আমার হাতে ?

The lamb thy riot doms to bleed today,
Had he thy reason, would he skip and play?
Pleased to the last, he crops the flow'ry food,
And licks the hand just rais'd to shed his blood.
Oh blindness to the future! kindly giv'n,
That each may fill the circle mark'd by Heav'n.

কবি আলেকজান্ডার পোপের এই পংক্তিটি যখন প্রথম পড়েছিলাম তখনও আমি ইসলাম বোঝা শুরু করিনি । কিন্তু ব্যাপারটা আসলেই খুব মনে ধরেছিল । একটা ভেড়া যদি জানত আজ তার জীবনের শেষ দিন, সে কি লাফিয়ে লাফিয়ে খেলা করতে পারত? সেকি তার এতদিনের পালক কিন্তু ভবিষ্যত হন্তারকের হাত থেকে খাবার খেতে পারত? আসলেই আল্লাহ্ অনেক দয়া করে ভাগ্যকে আমাদের সামনে অজানা রেখেছেন, নয়তো একটি দিন চলাও আমাদের জন্য হতো দুঃসাধ্য ।

জ্ঞান প্রকাশের আকাঙ্ক্ষা যাদের মধ্যে প্রবল তাদের বিতর্কের একটা প্রিয় বিষয় হচ্ছে ভাগ্য। অবশ্য শুধু পণ্ডিত নয়, ভাগ্য নিয়ে চিন্তাভাবনা করে সাধারন মুসলিমরাও বিপদে পড়ে যায় প্রায়ই।

ভাগ্য অদৃশ্য জগতের ব্যাপার। অতীতকে আমরা দেখি কিন্তু ভবিষ্যত কী হবে তা কেউ জানে না। হস্ত-বিশারদ নামের কিছু ঠগবাজ ভবিষ্যত জানার দাবি করে, কিন্তু এদের ভবিষ্যতবানীর একটা মেলে তো দশটা মেলে না। অবশ্য ভবিষ্যত জানলে ওরা নিজেরাই তো লটারির টিকেট বা সস্তা শেয়ার কিনে বড়লোক হয়ে যেত, মানুষের হাত ধরে ধাপ্পাবাজী করতো না।

মানুষ আসলে ভবিষ্যত জানে না, ভবিষ্যতের জ্ঞান একমাত্র আল্লাহর কাছে আছে, আর কারও কাছে নেই। ইসলামে ভাগ্যের বিষয়টা খুব স্পষ্ট। প্রত্যেক মুসলিমের জন্য ভাগ্য বিষয়ে সঠিক জ্ঞান অর্জন করা খুবই দরকারী, এতটাই জরুরী যে একে ঈমানের একটি স্তম্ভ বলা হয়েছে।

তাকদীর বা ভাগ্যে বিশ্বাসের কারণে মুমিনের জীবন হয় সহজ, খুব কষ্টের মূহর্তগুলোকেও ইসলামের পরশপাথর দিয়ে বদলে দেয়া যায়।

"আল্লাহ্ আমাদের যেমন সৃষ্টি করেছেন তেমন আমাদের সব কাজ, সব কথাও তিনিই সৃষ্টি করেছেন।" -(সূরা আস-সফফাত, আয়াত: ৯৬)

মানুষ যেহেতু ভবিষ্যত জানে না, তাই তার কর্তব্য যে কোনো পরিস্থিতিতে কুরআন এবং সুন্নাহ্ মোতাবেক আল্লাহর পছন্দ অনুযায়ী কাজ করা, আপন প্রবৃত্তিকে তোষণ না করা । যেমন, একটা বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে দেখলাম টিভিতে সুন্দরী বাছাই এর প্রতিযোগিতা চলছে। আবার ঘরের কোণে কুরআনুল কারীমের একটা অনুবাদও পেলাম। আল্লাহ্ মানুষকে দিয়ে টেলিভিশন তৈরী করিয়েছেন, এর অনুষ্ঠানগুলো তৈরী করেছেন এবং এর চলার জন্য দরকারি শক্তি বিদ্যুতের উৎসও সৃষ্টি করেছেন। আবার কুরআনের বানী আল্লাহর নিজের, তিনি আলিমদের দিয়ে এর অনুবাদ করে নিয়েছেন, বিজ্ঞানীদের দিয়ে ছাপাখানা তৈরী করে নিয়েছেন। এখন আমি কী করব সেটাই আল্লাহ্ পরীক্ষা করে পুরস্কার অথবা শাস্তি দেবেন। আমি যদি টিভিতে মেয়েদের নিলামে তোলার আয়োজন দেখি তাহলে শাস্তি পেতে হবে। যদি ঐ সময়ে কুরআন পড়ে সময়টা পার করি তাহলে আল্লাহ্ আমাকে পুরস্কার দেবেন।


বই: বাক্সের বাইরে
লেখক: শরীফ আবু হায়াত অপু

কোন মন্তব্য নেই