পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

পৃথিবীর শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সর্ববৃহৎ ও ভয়ংকরতম যে ফিতনা

দাজ্জাল সম্পর্কে অনেকের অনেক রকম অভিমত রয়েছে। কেউ একে কাল্পনিক বলেন, কেউ রুপক অর্থে ব্যবহার করেন, কেউ ইহুদি-খ্রিষ্টান সভ্যতাকে দাজ্জাল হিসাবে চিহ্নিত করেন। আবার কেউ কেউ দাজ্জালকে পুরোপুরি অস্বীকার করার চেষ্টা করেন।

এতো সব অভিমতের ভিড়ে আমরা কুরআন ও সহীহ হাদীস থেকে ‘দাজ্জাল’ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা পেশ করার চেষ্টা করছি, যেন এ সম্পর্কে আমরা সতর্ক সাবধান থাকতে পারি ও দাজ্জাল সম্পর্কে আমাদের ভুল বিশ্বাসগুলো সংশোধন করতে পারি।

আমরা এখানে দাজ্জাল সম্পর্কে ২৮টি অধ্যায়ে ৮৬টি বিশুদ্ধ হাদীস সন্নিবেশিত করেছি। বুখারী- মুসলিমের বাইরে অন্যান্য হাদীসের ক্ষেত্রে শাইখ আলবানি (রহঃ)-এর তাহকীক উল্লেখ করেছি। আমরা বিশ্বাস করি, সম্পূর্ণ লেখাটা মনোযোগ দিয়ে পাঠ করলে সম্মানিত পাঠকগণ উপকৃত হবেন ইনশাআল্লাহ। আর লেখায় কোনো ভুল থাকলে সংশোধন করে দেয়ার অনুরোধ রইল। মহান আল্লাহ আমাদেরকে তৌফিক দান করুন। ছবিটা কাল্পনিক।

অধ্যায়- ১ দাজ্জাল পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ফিতনা ও মারাত্মক বিপর্যয়ঃ


হাদীস নঃ ১
আবু কাতাদাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সাঃ)-কে বলতে শুনেছি যে, ‘’আদম (আঃ)-এর সৃষ্টির পর থেকে কিয়ামত পর্যন্ত সময়ের মধ্যে দাজ্জালের চেয়ে মারাত্মক আর কিছু সৃষ্টি হবে না’’ মুসলিম ৭২৮৫-(১২৬/২৯৪৬)

অধ্যায়- ২ কবরের ফিতনার মতই দাজ্জালের ফিতনা অতি ভয়ংকর হবেঃ


হাদীস নঃ ২
আসমা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমার নিকট ওয়াহী করা হয়েছে যে, কবরে তোমাদেরকে পরীক্ষা করা হবে দাজ্জালের ফিতনার ন্যায় অথবা তা কাছাকাছি’’ বুখারী ৮৬, ১৮৪, ৯২২, ১০৫৩, ৭২৮৭; মুসলিম ১৫০৯(ক)-(১১/৯০৫)

অধ্যায়- ৩ প্রত্যেক নবী তাঁর উম্মতদেরকে দাজ্জালের ফিতনা হতে সতর্ক করেছেনঃ


হাদীস নঃ ৩
সালিম (রহঃ) বলেন, ইবন উমার (রাঃ) বর্ণনা করেছেন যে, একদা নাবী (সাঃ) লোকদের মাঝে দাঁড়ালেন। প্রথমে তিনি আল্লাহ তায়ালার যথাযথ প্রশংসা করলেন। অতঃপর দাজ্জাল সম্পর্কে উল্লেখ করলেন। আর বললেন, আমি তোমাদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করে দিচ্ছি। প্রত্যেক নবীই তাঁর উম্মতদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। নুহ (আঃ) তাঁর উম্মতদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করেছেন।
কিন্তু আমি তোমাদেরকে জানিয়ে তার সম্পর্কে এমন একটি কথা জানিয়ে দেব, যা কোনো নবী তাঁর উম্মতদেরকে জানাননি। তোমরা জেনে রাখো যে, সে হবে এক চক্ষু বিশিষ্ট আর অবশ্যই আল্লাহ এক চক্ষু বিশিষ্ট নন’’ বুখারী ৩০৫৭, ৩৩৩৭, ৬১৭৫, ৭১২৩, ৭১২৭, ৭৪০৭; মুসলিম ৭২৪৬-(১২৯); তিরমিযি ২২৩৫, ২২৪৫

হাদীস নঃ ৪
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’সকল নবীই তাঁর উম্মতদেরকে কানা মিথ্যাবাদী দাজ্জাল সম্পর্কে সাবধান করেছেন। সাবধান! দাজ্জাল কানা হবে, তোমাদের রব কানা নন। দাজ্জালের দু’চোখের মধ্যস্থলে ‘কাফির’ লেখা থাকবে’’ মুসলিম ৭২৫৩-(১০১/২৯৩৩)

হাদীস নঃ ৫
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমি দাজ্জাল সম্পর্কে তোমাদেরকে কি এমন একটি হাদীস বলবো বা, যা কোনো নবী তাঁর কওমকে অদ্যাবধি বলেননি? শুনো, দাজ্জাল হবে কানা এবং তার সাথে জান্নাত ও জাহান্নাম নামে দুটি প্রতারনার বস্তু থাকবে। সে যাকে জান্নাত বলবে আসলে সেটি হবে জাহান্নাম। সাবধান! আমি তোমাদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করছি, যেমন নুহ (আঃ) তাঁর কওমকে সতর্ক করেছিলেন’’ মুসলিম ৭২৬২(১০৯/২৯৩৬)

অধ্যায়- ৪ রাসুল (সাঃ) সকল ঈমানদারদেরকে দাজ্জালের ফিতনা থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাইতে বলেছেনঃ


হাদীস নঃ ৬
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’তোমাদের কেউ যখন সলাতের শেষ বৈঠকে তাশাহুদ পাঠ শেষ করবে সে যেন আল্লাহর নিকট চারটি বস্তু হতে আশ্রয় প্রার্থনা করে, (১) জাহান্নামের আযাব হতে (২) কবরের আযাব হতে (৩) জীবন ও মৃত্যুর ফিতনা হতে (৪) মাসীহ দাজ্জালের ফিতনা হতে’’ বুখারী ১৩৩৭; মুসলিম ৯৪২-(১২৮/৫৮৮), ৯২৬(ক)-(১৩০/৫৮৮), ৯২৭-(১৩১/...), ৯২৯-(১৩৩/১১১); নাসায়ী ১৩১০; ইবন মাযাহ ৯০৯; আবু দাউদ ৯৮৩

হাদীস নঃ ৭
সা’দ ইবন আবি ওয়াক্কাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি পাঁচটি বিষয়ে আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা করার নির্দেশ দিতেন। নবী (সাঃ) দু’আ করতেনঃ ‘’হে আল্লাহ! আমি আপনার আশ্রয় চাচ্ছি কৃপণতা থেকে, আমি আশ্রয় চাচ্ছি কাপুরুষতা থেকে, আমি আশ্রয় চাচ্ছি অবহেলিত বার্ধক্যে উপনীত হওয়া থেকে, আমি আপনার নিকট আশ্রয় চাচ্ছি দুনিয়ার বড় ফিতনা (দাজ্জালের ফিতনা) থেকে এবং আমি আপনার কাছে আশ্রয় চাচ্ছি কবরের শাস্তি হতে’’ বুখারী ৬৩৭০

হাদীস নঃ ৮
আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) তাদেরকে যেভাবে কুরআন মাজীদের সুরা শিখাতেন ঠিক তেমনি ভাবে এই দু’আটিও শিখাতেনঃ দু’আটি হলঃ হে আল্লাহ! আমরা তোমার কাছে জাহান্নামের আযাব থেকে আশ্রয় চাই। আমি তোমার কাছে মাসীহ দাজ্জালের ফিতনা থেকে আশ্রয় চাই। আর আমি তোমার কাছে জীবন ও মৃত্যুর ফিতনা থেকে আশ্রয় চাই’’ মুসলিম ৯৩০-(১৩৪/৫৯০)

অধ্যায়- ৫ স্বয়ং রাসুল (সাঃ) দাজ্জালের ফিতনা থেকে আশ্রয় চেয়েছেনঃ


হাদীস নঃ ৯
আয়েশা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ ‘’আমি রাসুলুল্লাহ (সাঃ)-কে সলাতের ভিতরে দাজ্জালের ফিতনা হতে আশ্রয় চাইতে শুনেছি’’ বুখারী ৮৩৩, ৭১২৯; মুসলিম ৯২৩-(১২৭/৫৮৭), ৯২৫-(১২৯/৫৮৯); তিরমিযি ৩৪৮৫

হাদীস নঃ ১০
উরওয়াহ ইবন যুবাইর (রাঃ) হতে বর্ণিত যে, নাবী (সাঃ)-এর স্ত্রী আয়িশা (রাঃ) তাঁকে বলেছেন যে, আল্লাহর রাসুল (সাঃ) সলাতে এই বলে দু’আ করতেনঃ ‘’কবরের আযাব হতে, মাসীহ দাজ্জালের ফিতনা হতে এবং জীবন মৃত্যুর ফিতনা হতে ইয়া আল্লাহ! আপনার নিকট আশ্রয় প্রার্থনা করছি। হে আল্লাহ! গুনাহ ও ঋণগ্রস্ততা হতে আপনার নিকট আশ্রয় প্রার্থনা করছি। তখন এক ব্যক্তি তাঁকে বলল, আপনি কতইনা ঋণগ্রস্ততা হতে আশ্রয় প্রার্থনা করেন। রাসুল (সাঃ) বললেন, যখন কোনো ব্যক্তি ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ে তখন কথা বলার সময় মিথ্যা বলে এবং ওয়াদা করলে তা ভঙ্গ করে’’ বুখারী ৮৩২, ৮৩৩, ২৩৯৭; মুসলিম ৯২৫-(১২৯/৫৮৯)

হাদীস নঃ ১১
আয়িশাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। নবী (সাঃ) বলতেনঃ হে আল্লাহ! নিশ্চয়ই আমি আপনার আশ্রয় চাচ্ছি অলসতা, অতিশয় বার্ধক্য, গুনাহ আর ঋণ থেকে, কবরের ফিতনা এবং কবরের শাস্তি হতে। আর জাহান্নামের ফিতনা এবং এর শাস্তি হতে, আর ধনশালী হবার পরীক্ষার খারাপ পরিণতি থেকে। আমি আরও আশ্রয় চাচ্ছি দারিদ্র্যের অভিশাপ হতে। আমি আরও আশ্রয় চাচ্ছি মাসীহ দাজ্জালের ফিতনা হতে। হে আল্লাহ! আমাএ গুনাহ-এর দাগগুলো থেকে আমার অন্তরকে বরফ ও শীতল পানি দিয়ে ধুয়ে পরিস্কার করে দিন এবং আমার অন্তরকে সমস্ত গুনাহের ময়লা থেকে এমনভাবে পরিস্কার করে দিন, যেভাবে শুভ্র বস্তুকে ময়লা থেকে পরিস্কার করা হয়, আর আমার ও আমার গুনাহসমুহের মধ্যে এতটা দূরত্ব সৃষ্টি করে দিন, যতটা দূরত্ব আপনি দুনিয়ার পূর্ব ও পশ্চিমের মাঝে সৃষ্টি করেছেন’’ বুখারী ৬৩৬৮

হাদীস নঃ ১২
আয়িশাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। নবী (সাঃ) দু’আ করতেনঃ হে আল্লাহ! আমি আলস্য, অতি বার্ধক্য, ঋণ আর পাপ থেকে আপনার আশ্রয় চাচ্ছি। হে আল্লাহ! আমি আপনার আশ্রয় চাচ্ছি জাহান্নামের শাস্তি, জাহান্নামের ফিতনা, কবরের শাস্তি, প্রাচুর্যের ফিতনার কুফল, দারিদ্র্যের ফিতনার কুফল, মাসীহ দাজ্জালের ফিতনা থেকে। হে আল্লাহ! আপনি আমার যাবতীয় গুনাহ বরফ ও শীতল পানি দিয়ে ধুয়ে দিন। আমার অন্তর যাবতীয় পাপ থেকে পরিচ্ছন্ন করুন, যেভাবে শুভ্র বস্ত্র ময়লা থেকে পরিচ্ছন্ন করা হয়। আমার ও আমার গুনাহসমুহের মধ্যে এতটা দূরত্ব সৃষ্টি করে দিন যতটা দূরত্ব আপনি পূর্ব ও পশ্চিম প্রান্তের মধ্যে করেছেন’’ বুখারী ৬৩৭৫

হাদীস নঃ ১৩
আয়িশাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। নবী (সাঃ) আল্লাহর আশ্রয় চেয়ে বলতেনঃ ‘’হে আল্লাহ! আমি আপনার আশ্রয় চাচ্ছি জাহান্নামের ফিতনা, জাহান্নামের শাস্তি হতে হতে। আমি আরও আশ্রয় চাচ্ছি কবরের ফিতনা হতে এবং আপনার আশ্রয় চাচ্ছি কবরের আযাব হতে। আমি আরও আশ্রয় চাচ্ছি প্রাচুর্যের ফিতনা হতে, আর আমি আশ্রয় চাচ্ছি অভাবের ফিতনা হতে। আমি আরও আশ্রয় চাচ্ছি মাসীহ দাজ্জালের ফিতনা হতে’’ বুখারী ৬৩৭৬

হাদীস নঃ ১৪
আয়িশাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) এ দু’আ পাঠ করতেনঃ ‘’হে আল্লাহ! নিশ্চয়ই আমি আপনার কাছে জাহান্নামের সংকট, জাহান্নামের শাস্তি, কবরের সংকট, কবরের শাস্তি, প্রাচুর্যের ফিতনা ও অভাবের ফিতনা থেকে আশ্রয় চাচ্ছি। হে আল্লাহ! আমি আপনার নিকট মাসীহ দাজ্জালের ফিতনা থেকে আশ্রয় চাচ্ছি। হে আল্লাহ! আমার অন্তরকে বরফ ও শীতল পানি দিয়ে ধৌত করুন। আর আমার অন্তর থেকে গুনাহ এমনভাবে পরিস্কার করে দিন, যেভাবে শুভ্র বস্ত্রের ময়লা দূর করা হয়। এবং আমাকে আমার গুনাহ থেকে এতটা দূরে সরিয়ে রাখুন, পৃথিবীর পূর্ব থেকে পশ্চিম প্রান্তকে যতটা দূরে রেখেছেন। হে আল্লাহ! আমি আপনার নিকট আশ্রয় চাচ্ছি অলসতা, গুনাহ এবং ঋণ হতে’’ বুখারী ৬৩৭৭; মুসলিম ৬৭৬৪-(৪৯/৫৮৯)

হাদীস নঃ ১৫
মুসআব (রহঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, সা’দ (রাঃ) পাঁচটি জিনিস হতে আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা করার নির্দেশ দিতেন এবং তিনি এগুলো নবী (সাঃ) হতে উল্লেখ করতেন। তিনি এগুলো থেকে আল্লাহর আশ্রয় চেয়ে এ দু’আ পড়তে নির্দেশ দিতেনঃ হে আল্লাহ! আমি কৃপণতা থেকে আপনার আশ্রয় চাচ্ছি। আমি কাপুরুষতা হতে আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি, আমি অবহেলিত বার্ধক্যে উপনীত হওয়া থেকে আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি, আর আমি দুনিয়ার ফিতনা অর্থাৎ দাজ্জালের ফিতনা থেকেও আপনার আশ্রয় প্রার্থনা করছি। এবং আমি কবরের আযাব হতেও আশ্রয় প্রার্থনা করছি’’ বুখারী ৬৩৬৫

অধ্যায়- ৬ যে ব্যক্তি সুরা কাহাফের প্রথম ১০টি আয়াত পাঠ করবে সে দাজ্জালের ফিতনা হতে নিরাপদ থাকবেঃ


হাদীস নঃ ১৬
নাওয়াস বিন সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেনঃ ‘’তোমাদের যে কেউ তাঁকে দেখলে সে যেন তার বিরুদ্ধে সুরা কাহাফের প্রাথমিক আয়াতগুলো পাঠ করে’’ মুসলিম ৭২৬৩-(১১০/২৯৩৭); ইবন মাযাহ ৪০৭৫; তিরমিযি ২২৪০; আবু দাউদ ৪৩২১

হাদীস নঃ ১৭
আবু দারদা (রাঃ) হতে বর্ণিত। নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’যে ব্যক্তি সুরা কাহাফের প্রথম দশ আয়াত মুখস্ত করবে সে দাজ্জালের ফিতনা হতে নিরাপদ থাকবে’’ আবু দাউদ ৪৩২৩ (আলবানি সহীহ বলেছেন)

অধ্যায়- ৭ দাজ্জাল একজন যুবক হবেঃ


হাদীস নঃ ১৮
আন-নাওয়াস ইবনুস সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ নিশ্চয়ই সে (দাজ্জাল) একজন যুবক হবে’’ মুসলিম ৭২৬২-(১১০/২৯৩৭); তিরমিযি ২২৪০; ইবন মাযাহ ৪০৭৫

হাদীস নঃ ১৯
আন-নাওয়াস ইবনুস সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জাল যুবক এবং ঘন চুল বিশিষ্ট হবে, চোখ হবে আঙ্গুরের ন্যায়। আমি তাকে দেখতে কাফির আবদুল উযযা ইবন কাতান-এর মতো মনে করছি’’ মুসলিম ৭২৬৩-(১১০/২৯৩৭); ইবন মাযাহ ৪০৭৫

অধ্যায়- ৮ দাজ্জালের দেহ খুব মোটা, গায়ের রঙ লাল বর্ণ, গায়ে ঘন পশম হবে, চুলগুলো কোঁকড়ানো, ডান চোখ কানা, এবং চোখটি ভেসে উঠা আঙ্গুরের মতো হবেঃ


হাদীস নঃ ২০
আবদুল্লাহ ইবন উমার (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমি একবার ঘুমিয়ে ছিলাম। তখন আমি আমাকে কাবা গৃহ তাওয়াফরত অবস্থায় দেখতে পেলাম। এমন সময় সোজা চুলওয়ালা একজন পুরুষকে দুজন পুরুষের মাঝখানে দেখলাম, যার মাথা থেকে পানি ঝরছিল। আমি জিজ্ঞেস করলাম, ইনি কে? তাঁরা বলল, ইবন মারইয়াম। এরপর আমি ফিরে আসতে লাগলাম। এ সময় একজন লাল রঙের মোটা-সোটা কোঁকড়ানো চুলবিশিষ্ট, ডান চোখ কানা ব্যক্তিটিকে দেখলাম। তার (কানা) চোখটি যেন ভাসমান আঙ্গুর। আমি জিজ্ঞেস করলাম, এই ব্যক্তি কে? তারা বলল, এই হচ্ছে দাজ্জাল’’ বুখারী ৩৪৪০, ৩৪৪১, ৭০২৬, ৭১২৮; মুসলিম ২৭৩-(১৬৯)

হাদীস নঃ ২১
সালিম (রহঃ) বলেন, ইবন উমার (রাঃ) বর্ণনা করেছেন যে, একদা নাবী (সাঃ) লোকদের মাঝে দাঁড়ালেন। প্রথমে তিনি আল্লাহ তায়ালার যথাযথ প্রশংসা করলেন। অতঃপর দাজ্জাল সম্পর্কে উল্লেখ করলেন। আর বললেন, আমি তোমাদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করে দিচ্ছি। প্রত্যেক নবীই তাঁর উম্মতদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। নুহ (আঃ) তাঁর উম্মতদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। কিন্তু আমি তোমাদেরকে জানিয়ে তার সম্পর্কে এমন একটি কথা জানিয়ে দেব, যা কোনো নবী তাঁর উম্মতদেরকে জানাননি। তোমরা জেনে রাখো যে, সে হবে এক চক্ষু বিশিষ্ট আর অবশ্যই আল্লাহ এক চক্ষু বিশিষ্ট নন’’ বুখারী ৩০৫৭, ৩৩৩৭, ৭১২৩, ৭১২৭, ৭৪০৭; মুসলিম ২৭৪-(...), ২৭৫-(...)

হাদীস নঃ ২২
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমি কি তোমাদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে এমন একটি কথা বলে দেব না, যা কোনো নবীই তাঁর সম্প্রদায়কে বলেননি? তা হল, নিশ্চয়ই সে হবে এক চোখ ওয়ালা, সে সঙ্গে করে জান্নাত ও জাহান্নাম নিয়ে আসবে। সে যেটিকে বলবে এটা জান্নাত প্রকৃতপক্ষে সেটি হবে জাহান্নাম। আর আমি তার সম্পর্কে তোমাদেরকে সাবধান করছি, যেমন নুহ (আঃ) তাঁর সম্প্রদায়কে সাবধান করেছিলেন’’ বুখারী ৩৩৩৮

হাদীস নঃ ২৩
আবদুল্লাহ ইবন উমার (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা নবী (সাঃ) লোকজনের সামনে মাসীহ দাজ্জাল সম্পর্কে আলচনা করছিলেন। তিনি বললে, আল্লাহ তায়ালা অন্ধ নন। সাবধান! মাসীহ দাজ্জালের ডান চক্ষু কানা হবে। তার চক্ষু যেন ফুলে ফুলে যাওয়া আঙ্গুরের মতো’’ বুখারী ৩৪৩৯; মুসলিম ৭২৫১-(১০০/১২৯); তিরমিযি ২২৪১

হাদীস নঃ ২৪
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’সকল নবীই তাঁর উম্মতদেরকে কানা মিথ্যাবাদী দাজ্জাল সম্পর্কে সাবধান করেছেন। সাবধান! দাজ্জাল কানা হবে, তোমাদের রব কানা নন। দাজ্জালের দু’চোখের মধ্যস্থলে ‘কাফির’ লেখা থাকবে’’ মুসলিম ৭২৫৩-(১০১/২৯৩৩); তিরমিযি ২২৪৫

হাদীস নঃ ২৫
হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জালের বাম চোখ কানা হবে। তার দেহে ঘন পশম হবে। তার সাথে থাকবে জান্নাত ও জাহান্নামের চিত্র। প্রকৃতপক্ষে তার জাহান্নাম হবে জান্নাত এবং তার জান্নাত গণ্য হবে জাহান্নাম হিসাবে’’ মুসলিম ৭২৫৬-(১০৪/২৯৩৪)

হাদীস নঃ ২৬
আন-নাওয়াস ইবনুস সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জাল যুবক এবং ঘন চুল বিশিষ্ট হবে, চোখ হবে আঙ্গুরের ন্যায়। আমি তাকে দেখতে কাফির আবদুল উযযা ইবন কাতান-এর মতো মনে করছি’’ মুসলিম ৭২৬৩-(১১০/২৯৩৭); ইবন মাযাহ ৪০৭৫

হাদীস নঃ ২৭
উবাদাহ ইবন সামিত (রাঃ) সুত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’নিশ্চয়ই আমি তোমাদের নিকট দাজ্জাল সম্পর্কে বহুবার বর্ণনা করেছি, কারন আমি আশংকা করছি, তোমরা বুঝতে পারছ কিনা? নিশ্চয়ই মাসীহ দাজ্জাল হবে বেটে, মুরগীর পা বিশিষ্ট ও কুঞ্চিত কেশধারী, এক চোখ বিশিষ্ট আলোহীন এক চোখধারী যা বাইরের দিকে ফোলাও নয়, আবার কোঠরাগতও নয়। যদি তমাদ কোনো সন্দেহ থাকে তবে জেনে রাখো, তোমাদের রব কানা নন’’ আবু দাউদ ৪৩২০ (আলবানি সহীহ বলেছেন)

অধ্যায়-৯  দাজ্জালের কপালে কাফির লেখা থাকবে, মুমিন ছাড়া আর কেউ পড়তে পারবে নাঃ


হাদীস নঃ ২৮
আনাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নিশ্চয়ই নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’এমন কোনো নবী প্রেরিত হননি, যিনি তাঁর উম্মতকে এই কানা মিথ্যাবাদী সম্পর্কে সতর্ক করেননি। জেনে রাখো! সে কানা, আর তোমাদের রব কানা নন। দাজ্জালের দুই চোখের মাঝখানে কাফ, ফা, র (অর্থাৎ কাফির) লেখা থাকবে’’ বুখারী ৭১৩১, ৭৪০৮; তিরমিযি ২২৪৫

হাদীস নঃ ২৯
সালিম (রহঃ) বলেন, ইবন উমার (রাঃ) বর্ণনা করেছেন যে, একদা নাবী (সাঃ) লোকদের মাঝে দাঁড়ালেন। প্রথমে তিনি আল্লাহ তায়ালার যথাযথ প্রশংসা করলেন। অতঃপর দাজ্জাল সম্পর্কে উল্লেখ করলেন। আর বললেন, আমি তোমাদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করে দিচ্ছি। প্রত্যেক নবীই তাঁর উম্মতদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। নুহ (আঃ) তাঁর উম্মতদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। কিন্তু আমি তোমাদেরকে জানিয়ে তার সম্পর্কে এমন একটি কথা জানিয়ে দেব, যা কোনো নবী তাঁর উম্মতদেরকে জানাননি। তোমরা জেনে রাখো যে, সে হবে এক চক্ষু বিশিষ্ট আর অবশ্যই আল্লাহ এক চক্ষু বিশিষ্ট নন।
ইবন শিহাব (রহঃ) বলেন, আমাকে উমার ইবন সাবিত আল আনসারী জানিয়েছেন, জনৈক সাহাবা আমাকে অবহিত করেছেন যেদিন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) লোকদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করেছেন সেদিন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এ কথা বলেছেন, তাঁর চক্ষুদ্বয়ের মাঝখানে ‘কাফির’ লেখা থাকবে। যে ব্যক্তি তার কার্যক্রম অপছন্দ করবে সে তা পাঠ করতে পারবে কিংবা প্রত্যেক মুমিন মাত্রই তা পাঠ করতে সক্ষম হবে। তিনি এও বলেছেন যে, তোমরা জেনে রাখো! তোমাদের কোনো লোক মৃত্যুর আগে তার রবকে কক্ষনো দেখতে পারবে না’’ মুসলিম ৭২৪৬-(১২৯/২৯৩২); তিরমিযি ২২৩৫

হাদীস নঃ ৩০
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’সকল নবীই তাঁর উম্মতদেরকে কানা মিথ্যাবাদী দাজ্জাল সম্পর্কে সাবধান করেছেন। সাবধান! দাজ্জাল কানা হবে, তোমাদের রব কানা নন। দাজ্জালের দু’চোখের মধ্যস্থলে ‘কাফির’ লেখা থাকবে’’ মুসলিম ৭২৫৩-(১০১/২৯৩৩); আবু দাউদ ৪৩১৬

হাদীস নঃ ৩১
হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জালের সাথে কি থাকবে, এ সম্পর্কে আমি অবগত আছি। তার সাথে থাকবে প্রবাহমান দুটি নহর। একটি দৃশ্যত ধবধবে সাদা পানি বিশিষ্ট এবং অপরটি দৃশ্যত লেলিহান অগ্নির মতো হবে। যদি কেউ সুযোগ পায় তবে সে যেন ঐ নহরে প্রবেশ করে যেটাকে দৃশ্যত অগ্নি মনে হবে এবং চোখ বন্ধ করে ও মাথা অবনমিত করে সে যেন সেটা থেকে পানি পান করে। সেটা হবে ঠাণ্ডা পানি। দাজ্জালের চক্ষু লেপা হবে এবং তার চোখের উপর নখের মতো পুরু চামড়া থাকবে এবং উভয় চোখের মাঝখানে পৃথক পৃথকভাবে ‘কাফির’ লেখা থাকবে। শিক্ষিত অশিক্ষিত নির্বিশেষে সকল মুমিন ব্যক্তি ঐ লেখা পাঠ করতে পারবে’’ মুসলিম ৭২৫৭-(১০৫...)

অধ্যায়-১০ দাজ্জালের চলার গতি হবে তীব্র বায়ুতাড়িত মেঘের ন্যায় হবেঃ


হাদীস নঃ ৩২
আন-নাওয়াস ইবনুস সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমরা রাসুলুল্লাহ (সাঃ)-কে জিজ্ঞেস করলাম, দুনিয়াতে তার (দাজ্জালের) চলার গতি কত দ্রুত হবে? তিনি বললেন, তার (দাজ্জালের চলার গতি বায়ুতাড়িত মেঘের ন্যায় হবে’’ মুসলিম ৭২৬৩-(১১০/২৯৩৭); তিরমিযি ২২৪০; ইবন মাযাহ ৪০৭৫

অধ্যায়- ১১ দাজ্জালের আদেশে বৃষ্টি হবে এবং তার কাছে ধনভাণ্ডার থাকবেঃ


হাদীস নঃ ৩৩
আন-নাওয়াস ইবনুস সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জাল এক কওমের কাছে এসে তাদেরকে কুফরীর দিকে ডাকবে। তারা তার উপর ঈমান আনবে এবং তার আহবানে সারা দিবে। অতঃপর সে (দাজ্জাল) আকাশকে বৃষ্টি বর্ষণের জন্য আদেশ করবে এবং সে অনুযায়ী আকাশ বৃষ্টি বর্ষণ করবে। তারপর সে যমিনকে ফসল উৎপন্নের নির্দেশ দিবে এবং সে অনুযায়ী যমিন ফসল উৎপন্ন করবে। তারপর বিকেলে তাদের পশুগুলো পূর্বের চেয়ে উঁচু কুজ বিশিষ্ট, মাংসবহুল নিতম্ব বিশিষ্ট ও দুগ্ধপুষ্ট স্তন বিশিষ্ট হয়ে তাদের কাছে ফিরে আসবে।
তারপর দাজ্জাল অপর এক কওমের কাছে আসবে এবং তাদেরকে কুফরীর প্রতি ডাকবে। তাঁরা তার কথাকে উপেক্ষা করবে। ফলে দাজ্জাল তাদের নিকট হতে প্রত্যাবর্তন করবে। অমনিই তাদের মধ্যে দুর্ভিক্ষ ও পানির অনটন দেখা দিবে এবং তাদের হাতে ধন সম্পদ কিছুই থাকবে না।তারপর সে নিম্নভূমিতে গিয়ে বলবে, তোমার ভিতরের খনিজ ভাণ্ডার বের করে দাও। তারপর সেখান হতে ফিরে আসার সময় সেখানকার ধনভাণ্ডার তার অনুসরন করবে, যেভাবে মৌমাছিরা রানী মৌমাছির অনুসরণ করে’’ মুসলিম ৭২৬৩-(১১০/২৯৩৭); আবু দাউদ ৪৩২১; তিরমিযি ২২৪০; ইবন মাযাহ ৪০৭৫

অধ্যায়- ১২ দাজ্জালের সাথে পানি এবং আগুন থাকবে, মুলত তার আগুন হবে পানি আর পানি হবে আগুনঃ


হাদীস নঃ ৩৪
উকবাহ ইবন আমর (রাঃ) হুযাইফা (রাঃ)-কে বললেন, আপনি আল্লাহর রাসুল (সাঃ) হতে যা শুনেছেন, তা কি আমাদের নিকট বর্ণনা করবেন না? তিনি জবাব দিলেন, আমি তাঁকে বলতে শুনেছিঃ ‘’যখন দাজ্জাল বের হবে তখন তাঁর সঙ্গে পানি ও আগুন থাকবে। অতঃপর মানুষ যাকে আগুনের মতো দেখবে তা হবে মূলত ঠাণ্ডা পানি। আর যাকে মানুষ ঠাণ্ডা পানির মতো দেখবে, তা হবে আসলে দহনকারী অগ্নি। তখন তোমাদের মধ্যে যে তার দেখা পাবে সে যেন অবশ্যই আগুনের মধ্যে ঝাঁপিয়ে পড়ে, কেননা আসলে তা সুস্বাদু শীতল পানি’’ বুখারী ৩৪৫০

হাদীস নঃ ৩৫
হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জালের সাথে কি থাকবে, এ সম্পর্কে আমি অবগত আছি। তার সাথে থাকবে প্রবাহমান দুটি নহর। একটি দৃশ্যত ধবধবে সাদা পানি বিশিষ্ট এবং অপরটি দৃশ্যত লেলিহান অগ্নির মতো হবে। যদি কেউ সুযোগ পায় তবে সে যেন ঐ নহরে প্রবেশ করে যেতাকে দৃশ্যত অগ্নি মনে হবে এবং চোখ বন্ধ করে ও মাথা অবনমিত করে সে যেন সেটা থেকে পানি পান করে। সেটা হবে ঠাণ্ডা পানি। দাজ্জালের চক্ষু লেপা হবে এবং তার চোখের উপর নখের মতো পুরু চামড়া থাকবে এবং উভয় চোখের মাঝখানে পৃথক পৃথকভাবে ‘কাফির’ লেখা থাকবে। শিক্ষিত অশিক্ষিত নির্বিশেষে সকল মুমিন ব্যক্তি ঐ লেখা পাঠ করতে পারবে’’ মুসলিম ৭২৫৭-(১০৫...)

হাদীস নঃ ৩৬
হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’তার (দাজ্জালের) সঙ্গে পানি ও আগুন থাকবে। আসলে তার আগুন-ই হবে পানি আর পানি হবে আগুন’’ বুখারী ৭১৩০; আবু দাউদ ৪৩১৫

হাদীস নঃ ৩৭
হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জালের সাথে পানি ও আগুন থাকবে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তার অগ্নি হবে সুশীতল পানি এবং তার পানিই হবে অগ্নি। সুতরাং নিজেকে ধংস করো না’’ মুসলিম ৭২৫৮-(১০৬/...)

হাদীস নঃ ৩৮
হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জাল যখন আবির্ভূত হবে তখন তার সাথে পানি ও আগুন থাকবে। কিন্তু মানুষ যেতাকে বাহ্যত পানি দেখবে সেটা হবে দহনশীল অগ্নি। আর যেতাকে বাহ্যত অগ্নি দেখবে সেটা হবে সুমিষ্ট ঠাণ্ডা পানি। কাজেই তোমাদের মধ্যে যে কেউ এ সময়কাল পাবে সে যেন দৃশ্যত যাকে অগ্নি দেখা যাচ্ছে তাতেই প্রবেশ করে, কেননা প্রকৃতপক্ষে সেটা হবে সুমিষ্ট পানি’’ মুসলিম ৭২৬০-(১০৭/২৯৩৪-২৯৩৫), ৭২৬১-(১০৮...)

অধ্যায়- ১৩ দাজ্জালের সাথে জান্নাত ও জাহান্নামের মতো কিছু থাকবে, যাকে সে জান্নাত বলবে তা মুলত জাহান্নাম আর যাকে সে জাহান্নাম বলবে তা মুলত জান্নাতঃ


হাদীস নঃ ৩৯
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমি কি তোমাদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে এমন একটি কথা বলে দেব না, যা কোনো নবীই তাঁর সম্প্রদায়কে বলেননি? তা হল, নিশ্চয়ই সে হবে এক চোখ ওয়ালা, সে সঙ্গে করে জান্নাত ও জাহান্নাম নিয়ে আসবে। সে যেটিকে বলবে এটা জান্নাত প্রকৃতপক্ষে সেটি হবে জাহান্নাম। আর আমি তার সম্পর্কে তোমাদেরকে সাবধান করছি, যেমন নুহ (আঃ) তাঁর সম্প্রদায়কে সাবধান করেছিলেন’’ বুখারী ৩৩৩৮; ইবন মাযাহ ৪০৭১

হাদীস নঃ ৪০
হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জালের বাম চোখ কানা হবে। তার দেহে ঘন পশম হবে। তার সাথে থাকবে জান্নাত ও জাহান্নামের চিত্র। প্রকৃতপক্ষে তার জাহান্নাম হবে জান্নাত এবং তার জান্নাত গণ্য হবে জাহান্নাম হিসাবে’’ মুসলিম ৭২৫৬-(১০৪/২৯৩৪)

হাদীস নঃ ৪১
হুযাইফা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জালের সাথে কি থাকবে, এ সম্পর্কে আমি অবগত আছি। তার সাথে থাকবে প্রবাহমান দুটি নহর। একটি দৃশ্যত ধবধবে সাদা পানি বিশিষ্ট এবং অপরটি দৃশ্যত লেলিহান অগ্নির মতো হবে। যদি কেউ সুযোগ পায় তবে সে যেন ঐ নহরে প্রবেশ করে যেতাকে দৃশ্যত অগ্নি মনে হবে এবং চোখ বন্ধ করে ও মাথা অবনমিত করে সে যেন সেটা থেকে পানি পান করে। সেটা হবে ঠাণ্ডা পানি। দাজ্জালের চক্ষু লেপা হবে এবং তার চোখের উপর নখের মতো পুরু চামড়া থাকবে এবং উভয় চোখের মাঝখানে পৃথক পৃথকভাবে ‘কাফির’ লেখা থাকবে। শিক্ষিত অশিক্ষিত নির্বিশেষে সকল মুমিন ব্যক্তি ঐ লেখা পাঠ করতে পারবে’’ মুসলিম ৭২৫৭-(১০৫...)

হাদীস নঃ ৪২
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমি দাজ্জাল সম্পর্কে তোমাদেরকে কি এমন একটি হাদীস বলবো বা, যা কোনো নবী তাঁর কওমকে অদ্যাবধি বলেননি? শুনো, দাজ্জাল হবে কানা এবং তার সাথে জান্নাত ও জাহান্নাম নামে দুটি প্রতারনার বস্তু থাকবে। সে যাকে জান্নাত বলবে আসলে সেটি হবে জাহান্নাম। সাবধান! আমি তোমাদেরকে দাজ্জাল সম্পর্কে সতর্ক করছি, যেমন নুহ (আঃ) তাঁর কওমকে সতর্ক করেছিলেন’’ মুসলিম ৭২৬২(১০৯/২৯৩৬)

অধ্যায়- ১৪ দাজ্জালের সাথে রুটি ও গোশতের পর্বত এবং পানির নদি থাকবেঃ


হাদীস নঃ ৪৩
মুগীরা ইবন শু’বা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি নবী (সাঃ)-কে দাজ্জাল সম্পর্কে যত বেশি প্রশ্ন করতাম আর কেউ তা করেননি। তিনি আমাকে বল্লেনঃ ‘’ তার (দাজ্জাল) সম্পর্কে তোমার কি প্রশ্ন আছে? আমি বললাম, লোকেরা বলে যে, তার দাজ্জালের সঙ্গে খাদ্য তথা রুটি-গোশতের পর্বত ও পানির নদি থাকবে। তিনি বললেন, হাঁ, আল্লাহর নিকট তা খুবই সহজ’’ বুখারী ৭১২২; মুসলিম ৭২৬৮-(১১৪/২৯৩৯), ৭২৬৯-(১১৫/...); ইবন মাযাহ ৪০৭৩

অধ্যায়- ১৫ দাজ্জাল মানুষকে হত্যা করে আবার তাকে জীবিত করতে পারবেঃ


হাদীস নঃ ৪৪
আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদিন নবী (সাঃ) আমাদের কাছে দাজ্জাল সম্পর্কে দীর্ঘ হাদীস বর্ণনা করলেন। তিনি তার সম্পর্কে আমাদেরকে যা কিছু বলেছিলেন, তাতে এও বলেছেন যে, দাজ্জাল আসবে, তবে মদীনার প্রবেশপথে তার প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ থাকবে। মদীনার নিকটবর্তী বালুময় একটি স্থানে সে অবস্থান নিবে।
এ সময় তার দিকে এক ব্যক্তি আসবে, যে মানুষদের মাঝে উত্তম। কিংবা উত্তম ব্যক্তিদের একজন। সে বলবে, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তুই সেই দাজ্জাল- যার সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) আমাদের কাছে তাঁর হাদীস বর্ণনা করেছেন। তখন দাজ্জাল বলবে, তোমরা দেখ- আমি যদি একে হত্যা করে আবার জীবিত করে দেই তাহলে কি তোমরা এই ব্যপারে সন্দেহ করবে? লোকেরা বলল, না। এরপর সে তাঁকে হত্যা করবে এবং আবার জীবিত করবে। তখন সে লোকটি বলবে, আল্লাহর কসম! তোর সম্পর্কে আজকের মতো দৃঢ় বিশ্বাসী ছিলাম না। তখন দাজ্জাল তাঁকে হত্যা চাইবে। কিন্তু সে তা করতে সক্ষম হবে না’’ বুখারী ১৮৮২, ৭১৩২

হাদীস নঃ ৪৫
আন-নাওয়াস ইবনুস সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) একবার দাজ্জাল সম্পর্কে আলোচনা করেন... (দাজ্জাল) পূর্ণ এক যুবক লোককে দেকে তাঁকে তরবারীর আঘাতে দ্বিখণ্ডিত করে তীর নিক্ষেপের মতো নিক্ষেপ করবে। অতঃপর তাঁকে ডাক দিবে আর সে উজ্জ্বল সহাস্য বদনে (অর্থাৎ সুস্থ অবস্থায়) তার দিকে ফিরে আসবে’’ মুসলিম ৭২৬৩-(১১০/২৯৩৭), ৭২৬৫-(১১৩/২৯৩৮); তিরমিযি ২২৪০; ইবন মাযাহ ৪০৭৫

অধ্যায়- ১৬ দাজ্জাল কিয়ামতের অন্যতম নিদর্শনঃ


হাদীস নঃ ৪৬
আবু সারীহাহ হুযায়ফা আসীদ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দশটি নিদর্শন প্রকাশিত না হওয়া পর্যন্ত কিয়ামত হবে না। তিনি বললেন, ১) পশ্চিম দিক থেকে সূর্যোদয়, ২) মাসীহ দাজ্জালের আবির্ভাব, ৩) ধোঁয়া নির্গত হওয়া, ৪) দাববাতুল আরদ প্রকাশ পাওয়া, ৫) ইয়াজুজ-মাজুজের আবির্ভাব, ৬) ঈসা ইবন মারইয়াম-এর অবতরন, ৭) তিনটি ভূমিধ্বস- প্রাচ্যদেশে একটি, ৮) পাশ্চাত্যে একটি ৯) এবং আরব উপদ্বীপে একটি, ১০) অগ্নুৎপাত’’ মুসলিম ৭১৭৭-(৩৯/২৯০১); ইবন মাযাহ ৪০৫৫; তিরমিযি ২১৮৩, আবু দাউদ ৪৩১১

হাদীস নঃ ৪৭
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, ছয়টি ঘটনা সংঘটিত হওয়ার পূর্বেই তোমরা নেক আমলে দ্রুততা অবলম্বন করো। তা হল- ১) পশ্চিমাকাশ হতে সূর্যোদয় হওয়া, ২) ধোঁয়া বের হওয়া, ৩) দাজ্জাল আবির্ভাব হওয়া, ৪) দাববাহ (অদ্ভুত জন্তুর আত্মপ্রকাশ), ৫) খাস বিষয় (কারো মৃত্যু), ৬) আম বিষয় (সার্বজনীন বিপদ বা কিয়ামত)’’ মুসলিম ৭২৮৭(১২৮/২৯৪৭); ইবন মাযাহ ৪০৫৬

হাদীস নঃ ৪৮
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’ছয়টি (আলামত সংঘটিত হওয়ার আগে) দ্রুত তোমরা নেক আমলের দিকে ধাবিত হও। তা হল, দাজ্জাল প্রকাশিত হওয়া, ব্যাপক ধোঁয়া দেখা দেয়া, দাববাতুল আরদ (অদ্ভুত জন্তু) বের হওয়া, পশ্চিমাকাশে সূর্যোদয় হওয়া, কিয়ামত ও মৃত্যু’’ মুসলিম ৭২৮৮-(১২৯...)

অধ্যায়- ১৭ দাজ্জাল পৃথিবীতেই বন্দী অবস্থায় আছে, কিয়ামতের পূর্বে সে আত্মপ্রকাশ করবে। সাহাবী তামিম আদ-দারী (রাঃ)-এর সাথে দাজ্জালের সাক্ষাতঃ


হাদীস নঃ ৫৯
আমির ইবন শারাহীল শা’বী (রহঃ) হতে বর্ণিত। একদা রাসুলুল্লাহ (সাঃ) সলাত শেষে হাস্য হাস্যোজ্জল অবস্থায় মিম্বরে বসলেন। তিনি বললেন, তামীম আদ-দারী প্রথমে খ্রিস্টান ছিল। সে আমার কাছে এসে বাই’আত গ্রহন করেছে ও ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেছে। সে বর্ণনা করেছে, সে একবার লাখম ও জুযাম গোত্রের ত্রিশজন লোকসহ একটি সামুদ্রিক জাহাজে আরহন করেছিল। সামুদ্রিক ঝড় এক মাস পর্যন্ত তাদেরকে নিয়ে খেলা করতে থাকে। অতঃপর সূর্যাস্তের সময় তারা এক দ্বীপে আশ্রয় গ্রহন করে। সেখানে তামীম আদ-দারী এক দীর্ঘকায় লোককে দেখতে পায়। লোহার শিকলে বাঁধা অবস্থায় দু হাঁটুর মধ্য দিয়ে তার উভয় হাত ঘাড়ের সাথে মেলানো।
তামীম আদ-দারী বলেন, আমরা আতংকিত হয়ে পড়লাম, এ আবার কোনো জিন শয়তান কিনা? এরপর সে নিজের পরিচয় দিয়ে বলল, আমিই মাসীহ দাজ্জাল। অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, জেনে রেখ! উল্লেখিত দ্বীপ সিরিয়া সাগরে অথবা ইয়ামান সাগরের পার্শ্বস্থ সাগরে অবস্থিত। যা পৃথিবীর পূর্বদিকে অবস্থিত। এ সময় তিনি নিজ হাত দ্বারা পূর্ব দিকে ঈশারাও করলেন’’ মুসলিম ৭২৭৬-(১১৯/২৯৪২); আবু দাউদ ৪৩২৬; তিরমিযি ২২৫৩

অধ্যায়- ১৮ দাজ্জাল ইরাক ও সিরিয়ার মাঝামাঝি স্থান থেকে পৃথিবীতে আত্মপ্রকাশ করবেঃ


হাদীস নঃ ৬০
নাওওয়াস ইবন সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জাল ইরাক ও সিরিয়ার মধ্যপথ হতে আবির্ভূত হবে। অতঃপর সে ডানে বামে ফিতনা-ফাসাদ ছড়িয়ে বেড়াবে’’ মুসলিম ৭২৬৩-(১১০/২৯৩৭); ইবন মাযাহ ৪০৭৫; তিরমিযি ২২৪০; আবু দাউদ ৪৩২১

অধ্যায়- ১৯ দাজ্জাল সর্বপ্রথম ইরানের খোরাসান শহর থেকে বের হবেঃ


হাদীস নঃ ৬১
আবু বাকর সিদ্দিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) আমাদের নিকট বর্ণনা করেছেন যে, দাজ্জাল প্রাচ্যের খোরাসান অঞ্চল থেকে বের হবে’’ ইবন মাযাহ ৪০৭২; তিরমিযি ২২৩৭ (আলবানি সহীহ বলেছেন)

অধ্যায়- ২০ ইরানের আসবাহান শহরের সত্তর হাজার ইয়াহুদী দাজ্জালের অনুসারী হবেঃ


হাদীস নঃ ৬২
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আসবাহান-এর সত্তর হাজার ইয়াহুদী দাজ্জালের অনুসারী হবে, তাদের শরীরে (তায়সিলাহ) কালো চাদর থাকবে’’ মুসলিম ৭২৮২-(১২৪/২৯৪৪)

অধ্যায়- ২১ দাজ্জাল সর্বপ্রথম ক্রোধের মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করবেঃ


হাদীস নঃ ৬৩
হাফসাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জাল সর্বপ্রথম ক্রোধের মাধ্যমে বহিঃপ্রকাশ ঘটাবে’’ মুসলিম ৭২৪৯-(৯৮/২৯৩২)

হাদীস নঃ ৬৪
হাফসাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’কারো প্রতি ভীষণ রাগই সর্বপ্রথম দাজ্জালকে মানুষের সম্মুখে প্রকাশ করবে’’ মুসলিম ৭২৫০-(৯৯...)

অধ্যায়- ২২ দাজ্জাল নিজেকে রব দাবী করবেঃ


হাদীস নঃ ৬৫
ইবন উমার (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’অতঃপর সে (দাজ্জাল) তাকে (একজন নেককার ব্যক্তিকে) জিজ্ঞেস করবে, তুমি কি আমার প্রতি (রব হিসাবে) ঈমান আনবে না?’’ মুসলিম ৭২৬৭-(১১৩/...)

অধ্যায়-২৩ দাজ্জালের সাথে সাক্ষাত করা মুমিনের জন্য উচিৎ হবে নাঃ


হাদীস নঃ ৬৬
আবু দাহমা (রহঃ) সুত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি ইমরান ইবন হুসাইন (রাঃ)-কে বলতে শুনেছি, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’কেউ দাজ্জালের আবির্ভাবের কথা শুনলে সে যেন তার থেকে দূরে চলে যায়। আল্লাহর কসম! যে কোনো ব্যক্তি তার নিকট এলে সে অবশ্যই মনে করবে যে, সে ঈমানদার, অতপর সে তার দ্বারা জাগরিত সন্দেহজনক বিষয়ের অনুসরণ করবে’’ আবু দাউদ ৪৩১৯ (আলবানি সহীহ বলেছেন)

অধ্যায়- ২৪ দাজ্জালের ভয়ে মানুষ পাহাড়ে আশ্রয় গ্রহন করবেঃ


হাদীস নঃ ৬৭
উম্মু শারিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি নবী (সাঃ)-কে বলতে শুনেছি, ‘’মানুষেরা দাজ্জালের ভয়ে পাহাড়ে পালিয়ে যাবে। একথা শুনে উম্মু শারীক বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! সেদিন আরবের মানুষেরা কতায় থাকবে? জবাবে তিনি বললেন, তখন তারা সংখায় নগণ্য হবে’’ মুসলিম ৭২৮৩-(১২৫/২৯৪৫)

অধ্যায়-২৫ আল্লাহর এক বান্দার সাথে দাজ্জালের সাক্ষাতঃ


হাদীস নঃ ৬৮
আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জালের আত্মপ্রকাশের পর কোনো এক মুসলিম লোক তার দিকে গিয়ে যাবে। তারপর পথে অস্ত্রধারী দাজ্জাল বাহিনীর সাথে তার দেখা হবে। দাজ্জাল বাহিনী তাকে জিজ্ঞেস করবে, কোথায় যাবে? সে বলবে, আবির্ভূত দাজ্জালের কাছে যাবো। তারা তাঁকে প্রশ্ন করবে, তুমি কি আমাদের প্রতিপালকের উপর ঈমান আননি? সে বলবে, আমাদের প্রতিপালক গুপ্ত নন। দাজ্জালের লোকেরা তাঁকে লক্ষ্য করে বলবে, একে হত্যা করে দাও। তখন তারা একে অপরকে বলবে, আমাদের রব (দাজ্জাল) কাউকে তার সামনে নেয়া ব্যতিরেকে হত্যা করতে কি তোমাদেরকে বারন করেননি? তারপর তারা তাঁকে দাজ্জালের কাছে নিয়ে যাবে।
দাজ্জালকে দেখামাত্রই সে বলবে, হে লোক সকল! এ-তো সেই দাজ্জাল, যার ব্যাপারে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) আমাদেরকে বর্ণনা দিয়েছেন। তারপর দাজ্জাল তার লোকদেরকে আগন্তুক লোকের মাথা ছিন্ন-ভিন্ন করার নির্দেশ দিয়ে বলবে, তাঁকে ধর এবং তার মাথা ছিন্ন-বিছিন্ন করে দাও। তারপর তাঁর পেট ও পিঠে আঘাত করা হবে। আবার দাজ্জাল তাঁকে প্রশ্ন করবে, তুমি কি আমার প্রতি ঈমান আনয়ন করবে না? সে বলবে, তুমিই তো মাসীহ দাজ্জাল। তারপর দাজ্জাল তাঁর ব্যাপারে নির্দেশ দিবে। দাজ্জালের হুকুমে মাথা হতে পা পর্যন্ত করাত দিয়ে চিরে দু টুকরো করে দেয়া হবে। তারপর দাজ্জাল উভয় টুকরোর মধ্যস্থলে দণ্ডায়মান হয়ে তাঁকে সম্বোধন করে বলবে, উঠো। সে সোজা দাঁড়িয়ে যাবে।
এরপর আবারো তাঁকে জিজ্ঞেস করা হবে, তুমি কি আমার প্রতি ঈমান আনবে না? অতঃপর আগন্তুক ব্যক্তি বলবে, তোমার সম্পর্কে কেবল আমার মাঝে সুস্পষ্ট ধারনা বেড়েই চলছে। তারপর আগন্তুক লোক বলবে, হে লোক সকল! আমার পর দাজ্জাল আর কারো সঙ্গে এমন আচরন করতে সক্ষম হবে না। এরপর দাজ্জাল আবার তাঁকে যবাই করার জন্য পাকড়াও করবে। কিন্তু তাঁর গলা ও ঘাড় তামায় রুপান্তর করা হবে। ফলে দাজ্জাল তাঁকে যবাই করতে সক্ষম হবে না। উপায়ন্তর না দেখে দাজ্জাল তাঁকে তাঁর হাত-পা ধরে নিক্ষেপ করবে। লোকেরা মনে করবে, দাজ্জাল তাঁকে আগুনে নিক্ষেপ করেছে। বস্তুত, সে জান্নাতে নিক্ষিপ্ত হবে।
অতঃপর রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের নিকট এ লোকই হবে মানুষের মধ্যে সবচেয়ে বড় শাহাদাতের মর্যাদায় অধিষ্ঠিত’’ মুসলিম ৭২৯৭-(১১৩/...)

অধ্যায়- ২৬ ভয়ংকরতম ফিতনা দাজ্জাল আবির্ভূত হওয়ার পর পৃথিবীতে যতদিন থাকবেঃ


হাদীস নঃ ৬৯
ইয়াকুব ইবন আসিম ইবন উরওয়াহ ইবন মাস’উদ আস সাকাফী (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমার উম্মতের মধ্যেই দাজ্জালের আবির্ভাব হবে এবং সে চল্লিশ পর্যন্ত অবস্থান করবে। (বর্ণনাকারী বলেন) আমি জানিনা চল্লিশ দিন, না চল্লিশ মাস, চল্লিশ বছর’’ মুসলিম ৭২৭১-(১১৬/২৯৪০)

হাদীস নঃ ৭০
আন-নাওয়াস ইবনুস সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমি তোমাদের মাঝে বিদ্যমান থাকা অবস্থায় যদি দাজ্জালের আবির্ভাব হয়, তবে আমি নিইজেই তাকে প্রতিহত করবো, তোমাদের প্রয়োজন হবে না। আর যদি আমি তোমাদের মাঝে না থাকা অবস্থায় দাজ্জালের আত্মপ্রকাশ হয়, তবে প্রত্যেক মুমি লোক নিজের পক্ষ হতে তাকে প্রতিহত করবে। প্রত্যেক মুসলিমের জন্য আল্লাহ তায়ালাই হলেন আমার পক্ষ হতে তত্ত্বাবধানকারী।
দাজ্জাল যুবক এবং ঘন চুল বিশিষ্ট হবে, চোখ আঙ্গুরের ন্যায় হবে। আমি তাকে কাফির আবদুল উযযা ইবন কাতান-এর মতো মনে করছি। তোমাদের যে কেউ দাজ্জালের সময়কাল পাবে, সে যেন সুরা কাহাফের প্রথম দশ আয়াতসমুহ পাঠ করে। সে ইরাক ও সিরিয়ার মধ্যপথ হত আবির্ভূত হবে। সে ডানে-বামে দুর্যোগ সৃষ্টি করবে। হে আল্লাহর বান্দাগন! তোমরা অটল থাকবে।আমরা প্রশ্ন করলাম, হে আল্লাহর রাসুল! সে পৃথিবীতে কতদিন অবস্থান করবে? উত্তরে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, চল্লিশ দিন পর্যন্ত। এর প্রথম দিনটি হবে এক বছরের সমান, দ্বিতীয় দিনটি হবে এক মাসের সমান এবং তৃতীয় দিনটি হবে এক সপ্তাহের সমান। অবশিষ্ট দিনগুলো তোমাদের (স্বাভাবিক) দিনসমুহের মতই হবে’’ মুসলিম ৭২৬২-(১১০/২৯৩৭); ইবন মাযাহ ৪০৭৫; আবু দাউদ ৪৩২১

হাদীস নঃ ৭১
আন-নাওয়াস ইবনুস সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমরা প্রশ্ন করলাম, হে আল্লাহর রাসুল (সাঃ) সে (দাজ্জাল) পৃথিবীতে কতদিন অবস্থান করবে? রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, (দাজ্জাল) ৪০ দিন পর্যন্ত (পৃথিবীতে থাকবে)। আর তার প্রথম দিন ১ বছরের মতো দীর্ঘ হবে, দ্বিতীয় দিন হবে ১ মাসের সমান, তৃতীয় দিনটি হবে ১ সপ্তাহের সমান। আর বাকী দিনগুলো প্রায় তোমাদের দিনগুলোর সমপরিমান হবে’’ মুসলিম ৭২৬২-(১১০/২৯৩৭); আবু দাউদ ৪৩২১; তিরমিযি ২২৪০; ইবন মাযাহ ৪০৭৫

অধ্যায়- ২৭ দাজ্জাল পৃথিবীর সকল অংশ ভ্রমন করবে, তবে মক্কা ও মদীনায় প্রবেশ করতে পারবে না। দাজ্জাল আবির্ভাবের সময় মদীনা তিনবার কেঁপে উঠবে। দাজ্জালের সময়


মদীনায় ৭টি প্রবেশ পথ থাকবে, প্রতিটি পথে দু’জন করে ফেরেশতা পাহারায় নিযুক্ত থাকবেঃ

হাদীস নঃ ৭২
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’মক্কা ও মদীনা ব্যতীত এমন কোনো শহর নেই যেখানে দাজ্জাল পদচারন করবে না। মক্কা এবং মদীনার প্রত্যেকটি প্রবেশ পথেই ফেরেশতাগণ সারিবদ্ধভাবে পাহারায় নিয়োজিত থাকবে। এরপর মদীনা তাঁর অধিবাসীদেরকে নিয়ে তিনবার কেঁপে উঠবে এবং আল্লাহ তায়ালা সমস্ত কাফির ও মুনাফিকদেরকে মদীনা থেকে বের করে দিবেন’’ বুখারী ১৮৮১

হাদীস নঃ ৭৩
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জাল আসবে। অবশেষে মদীনার এক পার্শ্বে অবতরন করবে। এ সময় মদীনা তিনবার কেঁপে উঠবে। তখন সকল কাফির ও মুনাফিক বের হয়ে তার নিকট চলে আসবে’’ বুখারী ৭১২৪

হাদীস নঃ ৭৪
আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদিন নবী (সাঃ) আমাদের কাছে দাজ্জাল সম্পর্কে দীর্ঘ হাদীস বর্ণনা করলেন। তিনি তার সম্পর্কে আমাদেরকে যা কিছু বলেছিলেন, তাতে এও বলেছেন যে, দাজ্জাল আসবে, তবে মদীনার প্রবেশপথে তার প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ থাকবে। মদীনার নিকটবর্তী বালুময় একটি স্থানে সে অবস্থান নিবে। এ সময় তার দিকে এক ব্যক্তি আসবে, যে মানুষদের মাঝে উত্তম। কিংবা উত্তম ব্যক্তিদের একজন। সে বলবে, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তুই সেই দাজ্জাল- যার সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) আমাদের কাছে তাঁর হাদীস বর্ণনা করেছেন। তখন দাজ্জাল বলবে, তোমরা দেখ- আমি যদি একে হত্যা করে আবার জীবিত করে দেই তাহলে কি তোমরা এই ব্যপারে সন্দেহ করবে? লোকেরা বলল, না।

এরপর সে তাঁকে হত্যা করবে এবং আবার জীবিত করবে। তখন সে লোকটি বলবে, আল্লাহর কসম! তোর সম্পর্কে আজকের মতো দৃঢ় বিশ্বাসী ছিলাম না। তখন দাজ্জাল তাঁকে হত্যা চাইবে। কিন্তু সে তা করতে সক্ষম হবে না’’ বুখারী ১৮৮২, ৭১৩২; মুসলিম ৭২৬৫-(১১২/২৯৩৮)

হাদীস নঃ ৭৫
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’মক্কা ও মদীনা ব্যতীত এমন কোন শহর নেই যেখানে দাজ্জাল প্রবেশ করবে না। মক্কা ও মদীনার প্রতিটি প্রবেশ পথেই ফেরেশতাগণ সারিবদ্ধভাবে পাহারায় নিযুক্ত থাকবেন’’ বুখারী ৭১২৫

হাদীস নঃ ৭৬
আবু বকর (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’মদীনায় মাসীহ দাজ্জালের প্রভাব পড়বে না। সে সময় মদীনায় সাতটি প্রবেশদ্বার থাকবে। প্রতিটি প্রবেশদ্বারে দু’জন করে ফেরেশতা নিযুক্ত থাকবেন’’ বুখারী ১৮৭৯, ৭১২৫, ৭১২৬

হাদীস নঃ ৭৭
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’মদীনায় ঢুকতে পারবে না মাসীহ দাজ্জাল আর না মহামারী’’ বুখারী ৫৭৩১

হাদীস নঃ ৭৮
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’মদীনার প্রবেশপথগুলোতে ফেরেশতা নিযুক্ত আছেন। কাজেই সেখানে প্লেগ ও দাজ্জাল প্রবেশ করবে না’’ বুখারী ১৮৮০, ৭১৩৩

হাদীস নঃ ৭৯
আনাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’মদীনার দিকে দাজ্জাল আসবে, সে ফেরেশতাদেরকে মদীনায় পাহারারত অবস্থায় দেখতে পাবে। অতএব দাজ্জাল ও প্লেগ এর নিকটবর্তী হতে পারবে না ইনশা আল্লাহ’’ বুখারী ৭১৩১; তিরমিযি ২২৪২

হাদীস নঃ ৮০
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’দাজ্জাল আসবে, অতঃপর মদীনার একপাশে অবতরন করবে। এই সময়ে মদীনা তিনবার কেঁপে উঠবে। তখন সকল কাফির ও মুনাফিক বের হয়ে দাজ্জালের নিকট চলে আসবে’’ বুখারী ৭১২৪

হাদীস নঃ ৮১
আনাস ইবন মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’মক্কা ও মদীনা ছাড়া পৃথিবীর গোটা শহরেই দাজ্জাল অনুপ্রবেশ করবে। তবে মক্কা মদীনায় প্রবেশ করতে পারবে না। কেননা এই দু’ই শহরের প্রতিটি রাস্তায়ই ফেরেশতাগণ সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে এর পাহারাদারীতে নিযুক্ত থাকবে। পরিশেষে দাজ্জাল মদীনার এক নিকটবর্তী স্থানে অবতরন করবে। তখন মদীনায় তিনবার ভুমিকম্প হবে। যা ফলে প্রত্যেক মুনাফিক ও কাফির মদীনা থেকে বের হয়ে তার কাছে চলে যাবে’’ মুসলিম ৭২৮০-(১২৩/২৯৪৩)

অধ্যায়- ২৮ উম্মতে মুহাম্মদীর সর্বশেষ জিহাদ হবে দাজ্জালের বিরুদ্ধে। ঈসা (আঃ)-এর নেতৃত্বে দাজ্জাল ও তার বাহিনীর বিরুদ্ধে মুসলিমরা যুদ্ধ করবেঃ


হাদীস নঃ ৮২
ইমরান বিন হুসাইন (রাঃ) সুত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমার উম্মতের একটি দল সর্বদা সত্যের পক্ষে জিহাদ করতে থাকবে এবং তাদের শত্রুদের বিরুদ্ধে বিজয়ী হবে। অবশেষে তাদের সর্বশেষ দলটি ঈসা (আঃ)-এর নেতৃত্বে দাজ্জালের বিরুদ্ধে জিহাদ করবে’’ আবু দাউদ ২৪৮৪ (আলবানি সহীহ বলেছেন)

অধ্যায়- ২৯ ঈসা (আঃ) লুদ’ নামক স্থানে দাজ্জালকে হত্যা করবেনঃ


হাদীস নঃ ৮৩
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আল্লাহর শত্রু দাজ্জাল ঈসা (আঃ)-কে দেখামাত্রই বিগলিত হয়ে যাবে, যেমন লবন পানিতে মিশে যায়। যদি ঈসা (আঃ) তাকে এমনিতেই ছেড়ে দেন তবেও সে নিজে নিজেই বিগলিত হয়ে ধ্বংস হয়ে যাবে। অবশ্য আল্লাহ তায়ালা ঈসা (আঃ)-এর হাতে তাকে হত্যা করাবেন এবং তার রক্ত ঈসা (আঃ)-এর বর্শাতে তিনি তাদেরকে দেখিয়ে দিবেন’’ মুসলিম ৭১৭০-(৩৪/২৮৯৭)

হাদীস নঃ ৮৪
আন নাওয়াস ইবন সাম’আন (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’অতঃপর আল্লাহ তায়ালা ঈসা (আঃ)-কে প্রেরন করবেন। তিনি ফেরেশতার কাঁধের উপর ভর দিয়ে ওয়ারস ও জাফরান রং-এর জোড়া কাপর পরিহিত অবস্থায় দামেশক নগরীর পূর্ব দিকের উজ্জ্বল সাদা মিনারের নিকট অবতরন করবেন। যখন তিনি মাথা ঝুকাবেন তখন ফোঁটা ফোঁটা ঘাম তাঁর শরীর থেকে গরিয়ে পড়বে। তিনি যে কোনো কাফিরের কাছে যাবেন সে তাঁর শ্বাসের বাতাসে ধংস হয়ে যা বে। তাঁর দৃষ্টি যতদুর পর্যন্ত যাবে তাঁর শ্বাসও ততদুর পৌঁছাবে। তিনি দাজ্জালকে সন্ধান করতে থাকবেন। অবশেষে তাকে ‘বাবে লুদ’ নামক স্থানে গিয়ে পাকড়াও করবেন এবং তাকে হত্যা করবেন’’ মুসলিম ৭২৬২-(১১০-২৯৩৭); ইবন মাযাহ ৪০৭৫; তিরমিযি ২২৪০

হাদীস নঃ ৮৫
আন-নাওয়াস বিন সাম’আন আল কিলাবী (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা রাসুলুল্লাহ (সাঃ) দাজ্জাল সম্পর্কে আলোচনা করলেন, তিনি বলেন... অতঃপর ঈসা ইবন মারইয়াম (আঃ) দামেশকের পূর্ব প্রান্তে একটি সাদা মিনারে অবতরন করবেন এবং লুদ নামক স্থানের দ্বারপ্রান্তে দাজ্জালকে নাগালে পাবেন এবং তাঁকে হত্যা করবেন’’ আবু দাউদ ৪৩২১; তিরমিযি ২২৪৪ (আলবানি সহীহ বলেছেন)

হাদীস নঃ ৮৬
আবু হুরায়রাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাঃ) বলেছেনঃ ‘’আমার ও ঈসা (আঃ)-এর মাঝে কোনো নবী নেই। আর তিনি তো অবতরন করবেন। তোমরা তাঁকে দেখে এভাবে চিনতে পারবে যে, তিনি মাঝারি উচ্চতার, লাল-সাদা ও গেরুয়া রঙের মাঝামাঝি অর্থাৎ দুধে-আলতা তাঁর দেহের রঙ হবে। এবং তাঁর মাথার চুল ভেজা না থাকলেও মনে হবে চুল হতে যেন বিন্দু বিন্দু পানি টপকাচ্ছে। তিনি ইসলামের জন্য মানুষের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবেন, ক্রুশ ভেঙ্গে ফেলবেন, শুকর নিধন করবেন ও জিযিয়া রহিত করবেন। তিনি তাঁর যুগে ইসলাম ছাড়া সকল ধর্ম বিলুপ্ত করবেন এবং মাসীহ দাজ্জালকে হত্যা করবেন। তিনি পৃথিবীতে চল্লিশ বছর অবস্থান করবেন, অতঃপর মৃত্যুবরণ করবেন এবং মুসলিমরা তাঁর জানাজা পড়বে’’ আবু দাউদ ৪৩২৪ (আলবানি সহীহ বলেছেন)


সংকলক: শাইখ আনিসুর রহমান

কোন মন্তব্য নেই