পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

ঠকাচ্ছি কাকে?


  • ফজরে উঠতে পারিনি আজকে, বাকি ৪ ওয়াক্ত পড়ে আর কী হবে? এরচেয়ে কালকে ফজর থেকে নতুন করে শুরু করব।
  • এই-যে সুদ-ঘুষ খাই, এগুলো খারাপ জানি। একেবারে হাজ্জ করে এসে সব ছেড়ে দেব।
  • শালীনভাবে চলা আমাদের দরকার—এটা মানি। কিন্তু এখন বিভিন্ন কারণে পারি না। যখন পর্দা ধরব, তখন একেবারে বোরকা-হিজাব-নিকাব করব।
  • একটু-আধটু প্রেম-ভালোবাসা খারাপ না। বিয়ের পরে স্ত্রীর প্রতি সৎ থাকলেই তো হলো।
  • হিজাব তো করি। দু-একটা প্রোগ্রামে শুধু হিজাব করি না। ক্লোজ বন্ধু-আত্মীয়দের বিয়ে তো, তাই।
  • মুখের ওপরে মামাতো বোন, ফুফাতো বোন, খালাতো বোনদের গায়েরে মাহরাম কীভাবে বলি? এতদিন একসাথে বড়ো হয়েছি। পিঠাপিঠি বয়স। আমি তো আসলে বোনের মতো দেখি ওদের।
  • জন্মের পর থেকেই মামি-চাচিদের কাছে মানুষ। উনারা আমার মায়ের মতো। উনাদের সাথে দেখা না দিলে মানুষ কী বলবে?
  • বিয়ে তো জীবনে একবারই করতেছি। একটু মজা করে (হারাম বিষয়াদি-সহ) না করলে কি হয়?

লিস্ট লম্বা করতে চাইলে সাচ্ছন্দে করা যাবে। আল্লাহ তাআলা শয়তানের ওয়াসওয়াসা এবং নাফসের তৈরি নিজস্ব যুক্তি থেকে হিফাজত করুন।

“নিশ্চয়ই আল্লাহর কাছে একমাত্র গ্রহণযোগ্য দ্বীন হলো ইসলাম।”
“তবে কি তোমরা কিতাবের কিছু অংশ বিশ্বাস করো এবং কিছু অংশ অবিশ্বাস করো? যারা এমন করে, পার্থিব জীবনে দূগর্তি ছাড়া তাদের আর কোনোই পথ নেই। কিয়ামাতের দিন তাদের কঠোরতম শাস্তির দিকে পৌঁছে দেওয়া হবে। আল্লাহ তোমাদের কাজ-কর্ম সম্পর্কে গাফিল নন।”

বই : অনেক আধার পেরিয়ে
লেখক : মুহাম্মদ জাভেদ কায়সার (রহ.)

কোন মন্তব্য নেই