পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

কিছু অনন্য উপদেশ

খলিফার সাথে সালামা ইবন দিনার রহিমাউল্লাহর আলাপচারিতা : কিছু অনন্য উপদেশ।
. . . . . . . . . . . . . . . . . . .
একবার সালামা ইবন দিনার রহিমাউল্লাহ কে খলিফা সুলায়মান ইবন আব্দিল মালিক এর কাছে ডেকে পাঠানো হল।

তিনি গেলে খলিফা তাঁকে বললেনঃ আবু হাযিম (সালামা ইবন দিনার এর কুনিয়াত), আমার মনে কিছু কথা জমা হয়ে আছে আমি তা ব্যক্ত করতে চাই

আবু হাযিম- আমিরুল মুমিনীন বলুন, আল্লাহ সাহায্য কারী।

খলিফা-ওহে আবু হাযম আমরা মৃত্যুকে অপছন্দ করি কেন?

আবু হাযিম- এ জন্য যে দুনিয়াকে আবাসস্থল বানিয়েছি এবং আখিরাতকে বিধধস্থ করেছি, তাই আবাসস্থল ছেড়ে বিধধস্থ ভূমিতে যেতে অপছন্দ করী।

খলিফা-আপনি সত্য বলেছেন। আমি যদি জানতাম আগামীকাল আল্লাহর কাছে আমার কি পাওনা আছে?

আবু হাযিম-আপনি আপনার কর্মকে আল্লাহর কিতাবের কাছে উপস্থাপন করুন, জানতে পারবেন।

খলিফা-আল্লাহর কিতাবের কথায় পাব?

আবু হাযিম-আপনি তা পাবেন আল্লাহর এই বানির মধ্যেঃ "সৎ কর্মশীলরা থাকবে জান্নাতে আরদুষ্কর্মিরা থাকবে জাহান্নামে" আল ইনফিতার ১৩-১৪

খলিফা-তা হলে আল্লাহ যে রহমতের কথা বলেছেন তা কোথায়?

আবু হাযিম- "নিশ্চয়ই আল্লাহর করুনা সৎকর্মশীলদের নিকটবর্তী" । আল আরাফ ৫৬

খলিফা- হায় আমি যদি জানতে পারতাম, আগামিকাল আল্লাহর কাছে আমার আগমন কেমন হবে?

আবু হাযিম- সৎকর্মশীলদের আগমন হবে একজন প্রবাসীর তার পরিবারের কাছে ফিরে আসার মত। আর একজন দুষ্কর্মীর আগমন হবে একজন পালিয়ে যাওয়া দাসের মত যাকে ধরে টেনে হিঁচড়ে তার মনিবের কাছে আনা হয় এরপর খলীফা কেঁদে দিলেন। সে কান্নার আওয়াজ প্রবল থেকে প্রবলতর হয়ে উঠল। কান্না থামলে আবার বললেন, এর থেকে আমদের পরিত্রাণের উপায় কি?

আবু হাজমঃ আপনারা আপনাদের ভিতরের গর্ব অহঙ্কারের মলিনতা দূর করে আত্মমর্যাদাবোধের পরিচ্ছদ ধারণ করুন।

খলীফা-আর এই যে অর্থ বিত্ত এ থেকে আল্লাহভিতীর পথ কি?

আবু হাজম-যদি তা সঠিক ভাবে অর্জন করেন ,সঠিক ভাবে রক্ষা করেন, সমভাবে বণ্টন করেন এবং এ ক্ষেত্রে জনগণের মধ্যে ন্যায় নীতি প্রতিষ্ঠা করেন তাহলে সেটাই হবে খোদাভীতি।

খলীফা-আবু হাজম, আমাকে বলুন তো সবচেয়ে ভাল মানুষ কে?

আবু হাজম-আত্মমর্যাদার অধিকারী আল্লাহ ভীরু মানুষ।

খলীফা-বলুন তো সবচেয়ে ভাল কথা কোনটি?

আবু হাজম-যদি কোন ব্যক্তি কাউকে ভয় করে বা কারো নিকট কিছু পাওয়ার আশা করে এবং তার মুখের উপর যদি সত্য কথাটি বলে দেয় তাহলে সেটাই হবে সবচেয়ে ভাল কথা।

খলীফা-আবু হাজম , কোন দুয়া বেশি কবুল হয়?

আবু হাজম-সৎকর্মশীলদের দুয়া সৎকর্মশীলদের জন্য।

খলীফা-সবচেয়ে ভাল সাদাকা(দান) কোনটি?

আবু হাজম-একজন স্বল্পবিত্তের মানুষ একজন হত দরিদ্র মানুষের হাতে যা কিছু তুলে দেয়, সেটাই সবচেয়ে ভাল দান। যদিনা তার পেছনে খোঁটা অথবা কষ্ট দেওয়া উদ্দেশ্য হয়।

খলীফা-সবচেয়ে বেশি বুদ্ধিমান কে ?

আবু হাজম-যে ব্যক্তি আল্লাহ তাআলার আনুগত্যের সুযোগ পেয়ে তা বাস্তবায়ন করেন এবং মানুষকে তা করার জন্য উদ্বুদ্ধ করে, সেই সবচেয়ে বেশি বুদ্ধিমান।

খলীফা-তাহলে সবচেয়ে বেশি নির্বোধ কে?

আবু হাজম-যে ব্যক্তি তার বন্ধুর ইচ্ছা অনুযায়ী চলে এবং সেই বন্ধুটিও একজন অত্যাচারী। তখন সে মূলতঃ তার আখিরাতকে অন্যের দুনিয়ার বিনিময়ে বিক্রি করে দেয়।

খলীফা-আবু হাজম আপনি কি আমাদের সঙ্গ দিতে পারবেন? আপনি আমাদের থেকে কিছু গ্রহণ করবেন এবং আমরা আপনার থেকে কিছু গ্রহণ করবো।

আবু হাজম- আমিরুল মুমিনীন তা সম্ভব নয়।

খলীফা- কেন?

আবু হাজম-আমার ভয় হয়, আমি আপনাদের উপর একটু নির্ভরশীল হয়ে পড়ি কিনা। আর তাহলে আল্লাহ আমাকে বেশি করে দুনিয়ার কষ্ট ও আখিরাতের শাস্তি দিবেন।

খলীফা-আবু হাজম আপনি আপনার প্রয়োজনের কথা আমার কাছে একটু ব্যক্ত করুন।

এবার আবু হাজিম চুপ থাকলেন । তারপর বললেন আপনার চেয়ে অধিক ক্ষমতাবান সত্তার নিকট আমি তা পেশ করেছি। তিনি সেই প্রয়োজনের যতটুকু আমাকে দেন হৃষ্টচিত্তে গ্রহণ করি ।

[তাবেঈদের জীবনী, ১ম খন্ড]

1 টি মন্তব্য: