পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

কিছু অমৃত বাণী:

●●● ”তাওহীদ হলো সমস্ত দোয়া, সমস্ত কান্নাকাটি, সাহায্য চেয়ে সমস্ত আবেদন, সমস্ত আশা এবং সকল কল্যাণের আগমন ও সকল ক্ষতি নিবারণের জন্য প্রার্থনা অন্য কেউ নয় বরং কেবলই আল্লাহর উদ্দেশ্যে হতে হবে।”

– ইমাম মুহাম্মাদ আলী আশ-শাওকানী [আল দূর আল-নাদিদ]


●●● “এখনকার তরুণদের সমস্যা হলো, তারা যখনই নতুন কিছু শিখে তখনই মনে করে তারা সব জেনে ফেলেছে।”

– মুহাম্মাদ নাসিরুদ্দিন আল-আলবানি (রাহিমাহুল্লাহ)[সিলসিলাত-উল-হুদা ওয়ান-নূর, পৃ ৮৬১]


●●● "আপনি যেদিন উপলব্ধি করবেন ইসলামের জন্য কী বিশাল পরিমাণ কাজ করা প্রয়োজন অথচ হাতে কতটা কম সময় রয়েছে, সেদিন বুঝতে পারবেন ছুটির দিন কাটানোর মতো কোন সময় নেই।"

-- ড. বিলাল ফিলিপস


●●● “নিশ্চয়ই যে ব্যক্তি একাই একটি শহর দখল করে ফেলে তার চেয়েও শক্তিশালী সেই ব্যক্তি যে নিজের কামনাকে জয় করে।”

– সুলাইমান বিন দাউদ [হিলইয়াহ আল-আউলিয়া, ৬/১৭০৭]


●●● “যে স্থানে থাকা আল্লাহ নিষিদ্ধ করেছেন সেখানে আপনার উপস্থিতি এবং যেখানে থাকতে আল্লাহ আদেশ করেছেন সেখানে আপনার অনুপস্থিতির ব্যাপারে সাবধান হোন।”

– আবু হাজিম [আল-হিলইয়াহ, ৩/২৩৪]


●●● “আল্লাহকে ভয় করো, কেননা যে তাকে ভয় করে সে কখনো একাকীত্ব অনুভব করে না।”

– উমার ইবনুল খাত্তাব (রাদিয়াল্লাহু আনহু) [তাকওয়া: দি প্রোভিসন অফ বিলিভার্স, পৃ ১৪]


●●● ইমাম সুফিয়ান আস-সাওরি (রাহিমাহুল্লাহ) একটি চিঠিতে লিখেছিলেন:

“তোমার ব্যক্তিগত ও গোপন জীবনকে উন্নত করো, আল্লাহ তোমার সামাজিক ও প্রকাশ্য জীবনে উন্নতি দান করবেন। তোমার এবং আল্লাহর মধ্যকার বিষয়গুলোকে ভালো করো, আল্লাহ তোমার সাথে মানুষের মধ্যকার বিষয়গুলোকে ভালো করবেন। আখিরাতের জন্য পরিশ্রম করো, আল্লাহ তোমার পার্থিব বিষয়গুলোর জন্য যথেষ্ট হবেন।”

[বায়োগ্রাফি অফ ইমাম সুফিয়ান আস-সাওরি : সালাহউদ-দিন ইবনে আলি আবদুল মাউজুদ]


●●● “তাঁর (আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলার) পক্ষ থেকে আসা প্রতিটি শাস্তিই সম্পূর্ণরূপে ন্যায়বিচার এবং তাঁর পক্ষ থেকে আসা প্রতিটি কল্যাণ পরিপূর্ণভাবে তার দয়া (রাহমাত)।”

– ইমাম ইবনে তাইমিয়া [মাজমু’ ফাতাওয়া, ১০/৮৫]


●●● “কোন কিছুকে সংশোধন করতে আমার এত বেশি সংগ্রাম করতে হয়নি, আমার আত্মাকে বশ করতে আমার যত বেশি কঠিন লেগেছে ; কখনো আমি জয়ী হই, কখনো হই পরাজিত।”

– ইমাম সুফিয়ান আস-সাওরি [বায়োগ্রাফি অফ সুফিয়ান আস-সাওরি : সালাহউদ্দিন ইবন আলী ইবনে আবদুল-মাউজুদ, পৃ ৮৬]


●●● ”নিশ্চয়ই একজন লোকের কোন কাজ ছাড়া অযথা বসে থাকা দেখতে আমি ঘৃণা করি, যখন সে দুনিয়ার জীবনের জন্য কোন কাজ করছে না, এমনকি আখিরাতের জন্যও কিছু করছে না।”

– আবদুল্লাহ ইবনে মাস’উদ (রাদিয়াল্লাহু আনহু) [আল-হিলইয়াহ, ১/১৩০]


●●● মু’আজ (রাদিয়াল্লাহু আনহু) বলেন:

“মৃত্যুকে অভিনন্দন – এটা এমনই প্রিয় যা প্রয়োজনের সময়ে এসেছে। এবং যে ব্যক্তি (জীবনের পাপের জন্য) অনুতপ্ত হয় (তাওবা করে) সে সফলকাম।”

[লা তাহযান : ড. আইয আল কারনি, পৃ ৪২১]


●●● "নিকৃষ্ট তো সেই মৃতব্যক্তির পরিবারের মানুষগুলো, যারা মৃত মানুষটির জন্য কান্নাকাটি করে অথচ তার রেখে যাওয়া ঋণ পরিশোধ করে না।"

-- ইমাম আল-হাসান আল-বাসরি [জায ফিহি কালাম 'আলা হাদিস : ইয়াত্তাবিউ আল-মাইয়্যিতা সালাসান, পৃ ২৪]


●●● “সে কী পেলো যে আল্লাহকে হারালো ? সে কী হারালো যে আল্লাহকে পেলো?”

— ইবনু আতা’আল্লাহ আল ইসকান্দারি (রাহিমাহুল্লাহ)

1 টি মন্তব্য: