পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

বিভিন্ন প্রশ্নোত্তরে যাকাত


প্রশ্ন: দাওয়াতের কাজের জন্য, ইসলামী বই-পুস্তক ছেপে বা ক্যাসেট-সিডি তৈরী করে বিতরণের জন্য কি যাকাতের অর্থ ব্যবহার করা যায়?

উত্তর: ইসলামী দাওয়াতের কাজে যাকাতের অর্থ ব্যবহার করা যায়। যেহেতু তা আমভাবে যাকাতের একটি খাত 'ফী সাবীলিল্লাহ'র অন্তর্ভুক্ত। (ইবনে জিবরীন)


প্রশ্ন: পেশাদার ভিক্ষুকদেরকে কি যাকাতের মাল দেওয়া যাবে?

উত্তর: যদি জানা যায় যে, কেউ একজন পেশাদার ভিক্ষুক। সে যাকাতের দাবিদার নয় এবং ভিক্ষা করা তার জন্য বৈধও নয়। তাহলে তাকে ভিক্ষাও দেওয়া যাবেনা। (ইবনে জিবরীন)

বিদায় হজ্জ্বের সময়ে আল্লাহর রসূল (সা:) সাদকাহ্ বিতরণ করছিলে। এমন সময় দুটি লোক এসে তাঁর কাছে যাচ্ঞা করলো। তিনি লোক দুটির দিকে নজর তুলে পুনরায় নামিয়ে নিলেন। দেখলেন, তারা উভয়ে কর্মক্ষম লোক। অতঃপর তিনি বললেন, "তোমরা যদি চাও, তাহলে আমি দিতে পারি । কিন্তু এ মালে কোন ধনী ও উপার্জনশীল কর্মঠ লোকের কোন অংশ নেই।" (আবু দাউদ, ১৬৩৩)



প্রশ্ন: কাউকে যাকাত দেওয়ার সময় সে যাকাতের হকদার কি না, তা জিজ্ঞেস করা জরুরী কি?


উত্তর: দেওয়ার সময় সে যাকাতের হকদার কিনা তা জিজ্ঞাসা করা জরুরী নয়। তাতে সে লজ্জিতবোধ করতে পারে। যদি আপনি আপনার প্রবল ধারণায় মনে করেন যে, অমুক যাকাতের হকদার, তাহলে তাকে দিয়ে ফেলুন। হাত-পাতা ফকীর না হলেও সে মিসকীন হতে পারে।


প্রশ্ন: কাউকে যাকাত দেওয়ার সময় তাকে জানিয়ে দেওয়া জরুরী কি?

উত্তর: যাকে যাকাতের মাল দিয়ে সাহায্য করা হবে, তাকে এ কথা জানানো জরুরী নয় যে তা যাকাতের মাল। আপনি তাকে হকদার বুঝলে, তাকে দিন। সে যা মনে করে গ্রহন করবে, করুক।


প্রশ্ন: কোন শ্রেণীর ঋণগ্রস্তকে যাকাতের মাল দিয়ে সাহায্য করা যায়?

উত্তর: যে ব্যক্তি কোন বৈধ কাজ করতে গিয়ে ঋণগ্রস্ত হয়, তাকেই যাকাত দিয়ে সাহায্য করা যাবে । পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি অবৈধ কাজ করতে গিয়ে ঋণগ্রস্ত হয়, তাকে যাকাত দিয়ে সাহায্য করা যাবে না। (ফিকহুয যাকাত ২/৬২৫)


প্রশ্ন: আমার মা পৃথক থাকে। আমি কি আমার মা কে যাকাত দিতে পারি?

উত্তর: মা কে যাকাত দেওয়া বৈধ নয়। মায়ের ভরণপোষণ করা ছেলের জন্য ওয়াজিব। আর তা হবে ছেলের নিজের সম্পদ থেকে। অনুরূপ বাবা, স্ত্রী ও ছেলেকে যাকাত দেওয়া যাবে না। (ইবনে বায)


প্রশ্ন: আমার স্বামী বিদেশে পড়াশোনা করে। কিন্তু তার অর্থের বড় অভাব। আমি কি আমার মালের যাকাত তাকে দিতে পারি?

উত্তর: স্ত্রী তার স্বামীকে প্রয়োজনে যাকাত দিতে পারে। যেহেতু স্বামীর ভরণপোষণ করা স্ত্রীর উপর ওয়াজিব নয়।


প্রশ্ন: বেনামাজীকে যাকাত দেওয়া বৈধ কি?

উত্তর: বেনামাজীকে যাকাত দেওয়া বৈধ নয়। তবে তাকে নামাযের দিকে আকর্ষণ করার উদ্দেশ্যে যাকাত দেওয়া যায়।


প্রশ্ন: শিশু, এতিম ও পাগলের মালেও যাকাত ফরয কি?

উত্তর: যাকাত ফরয হয় মালে। তাই তা ফরয হওয়ার জন্য মালিকের জ্ঞানসম্পন্ন ও সাবালক হওয়া শর্ত নয়। বলা বাহুল্য শিশু, এতিম ও পাগলের মালেও যাকাত ফরয। তাদের তরফ থেকে তাদের অভিভাবক (অলী বা অসী) হিসাব করে আদায় করবে। এতে বাহ্য দৃষ্টিতে মাল কমতে থাকলেও বাস্তবে তাদে মালে বরকত বৃদ্ধি পাবে। তাছাড়া অভিভাবকদের উচিত, তাদের মাল ব্যবসায় বিনিয়োগ করা। (আল মুমিত, ৬/২৬-২৭)


প্রশ্ন: কারখানা ও প্রেসের মালিক কিসের যাকাত দিবে?

উত্তর: কারখানা ও প্রেসের যন্ত্রপাতির কোন যাকাত নেই। যাকাত আছে নিসাব পরিমাণ টাকা পয়সা ও বিক্রেয় পণ্য-সামগ্রীর। (লাজনাহ দায়েমাহ)



প্রশ্ন: ফিতরার যাকাত কি মালের যাকাতের মতোই আট শ্রেণীর হকদারের মাঝে বিতরণ করা যাবে?


উত্তর: ফিতরার যাকাত আম নয়, বরং তা কেবল মিসকীনদের জন্য খাস। (বানী, তামামুল মিন্নাহ)


প্রশ্ন: আমি কীভাবে স্বর্ণের যাকাত আদায় করবো?

উত্তর: আপনার কাছে যে মানের স্বর্ণ আছে, সেই মানের স্বর্ণের বাজার-দর জেনে নিবেন। তার সঠিক ওজন জেনে নিবেন। অতঃপর তার মূল্য নির্ধারণ করে ২.৫% (প্রতি একশ টাকায় আড়াই টাকা) যাকাত আদায় করবেন।


প্রশ্ন: অলঙ্কারের যাকাত দেওয়ার সময় কি মা-মেয়ের অলঙ্কার একত্রিত করে যাকাত দিতে হবে?

উত্তর: না। প্রত্যেক মহিলার অলঙ্কার নিসাব পরিমাণ হলে তবেই যাকাত দিতে হবে। মায়ের সাথে মেয়ের অলঙ্কার একত্রিত ক'রে নিসাব দেখা জরুরী নয়।




বই: দ্বীনী প্রশ্নোত্তর 
লেখক: শাইখ আব্দুল হামীদ ফাইযী

কোন মন্তব্য নেই