পরকালীন প্রস্তুতি

কুর'আন-সুন্নাহর আলোকে পরকালীন মুক্তির আশায় একটি পরকালমুখী উদ্যোগ

ধারাবাহিক কুরআন ০৪


[১]
একবার কিছু লোক ইমাম আবু হানীফা রঃ-কে প্রশ্ন করে, "আল্লাহ যে আছেন তার প্রমাণ কি?"

তিনি বললেন, “আমাকে ছেড়ে দাও, আমি এখন অন্য চিন্তায় আছি। শুনলাম, একখানা বড় নৌকা আছে যার মধ্যে বিভিন্ন ব্যবসায়ের মালও রয়েছে। কিন্তু, ঐ নৌকার না আছে কোন রক্ষক, না আছে কোনো চালক! অথচ নৌকাটি নদীতে চলছে আর বড় বড় ঢেউগুলো নিজে নিজেই চিরে ফেড়ে চলে যাচ্ছে। থামার জায়গায় থামছেও, চলার জায়গায় চলছে! অথচ, নৌকাটির কোনো নিয়ন্ত্রকও নেই।"

তখন প্রশ্নকারীরা বলল, 'আপনি কি বাজে চিন্তায় পড়ে আছেন? কোন জ্ঞানী একথা বলতে পারে যে "এত বড় নৌকা শৃংখলার সাথে তরঙ্গময় নদীতে আসছে-যাচ্ছে অথচ ওর কোন চালক নেই?"

তিনি বললেন ‘আফসোস তোমাদের জ্ঞানের! একটি নৌকা চালক ছাড়া চলতে পারে না, সারা দুনিয়া, আসমান, যমীনের সব জিনিস ঠিকভাবে নিজের কাজে লেগে রয়েছে অথচ এটার কোনো মালিক, পরিচালক বা সৃষ্টিকর্তা নেই?" উত্তর শুনে তারা হতভম্ব হয়ে গেল এবং সত্য জেনে নিয়ে মুসলমান হয়ে গেল।

[২]

হযরত ইমাম শাফিঈ রঃ-কেও এই প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, "তুঁত গাছের একই পাতা একই স্বাদ। এটা খেয়ে পোকা হতে রেশম বের হয়, মৌমাছি মধু দেয়, হরিণের মধ্যে মৃগনাভি জন্মলাভ করে এবং গরু-ছাগল গোবর ও লাদি দেয়। একই পাতার মধ্যে বিভিন্ন প্রকৃতির সৃষ্টিকারী একজন আছেন, তাকেই আমরা আল্লাহ মেনে থাকি।"

[৩]

একজন বেদুঈনকে জিজ্ঞেস করা হয়। সে উত্তরে বলেছিল, সুবহানাল্লাহ! উটের বিষ্ঠা দেখে উট আছে একথার প্রমাণ পাওয়া যায়, পায়ের চিহ্ন দেখে পথিকের প্রমাণ পাওয়া যায়; তাহলে এই যে বড় বড় নক্ষত্র বিশিষ্ট আকাশ, বহু পথ বিশিষ্ট যমীন, বড় বড় ঢেউ বিশিষ্ট সমুদ্র কি সেই মহাজ্ঞানী ও সূক্ষ্মদর্শী আল্লাহর অস্তিত্বের প্রমাণ দেয় না?" (তাফসীরে ইবনে কাসীরঃ২:২১)

1 টি মন্তব্য: